প্রতি ১৪ দিনে হারিয়ে যাচ্ছে একটি করে ভাষা : ইউনেস্কো

টেকসই উন্নয়নের জন্য ভাষাগত বৈচিত্র্য ও বহুভাষা অপরিহার্য উল্লেখ করে জাতিসংঘের সংস্থা ইউনেস্কো জানিয়েছে, বিশ্বের বুক থেকে প্রতিনিয়ত ভাষা হারিয়ে যাচ্ছে। কাজেই হারিয়ে যাওয়ার হাত থেকে ভাষা রক্ষায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে হাতিয়ার হিসেবে কাজে লাগাতে হবে।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে দেওয়া এক বার্তায় সংস্থাটির মহাপরিচালক অড্রে অ্যাজুলাই বিশ্ববাসীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেছেন, প্রতি দুই সপ্তাহে বিশ্বের বুক থেকে হারিয়ে যাচ্ছে একটি করে ভাষা। এই ভাষার সঙ্গে সঙ্গে হারিয়ে যাচ্ছে মানুষের ইতিহাস ও সংস্কৃতির একটি অংশ।

মাতৃভাষার গুরুত্ব তুলে ধরতে গিয়ে নেলসন ম্যান্ডেলার একটি উক্তি উল্লেখ করেন তার বার্তায়।

ম্যান্ডেলা বলেছিলেন, যখন আপনি কোনো ভাষায় কাউকে কিছু বলেন, তা তার মগজে পৌঁছায়, সে তা বুঝতে পারে। কিন্তু যখন তার নিজের ভাষায় বলেন, তখন তা তার হৃদয়ে পৌঁছায়।

জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সাইবার জগতে প্রত্যেকের নিজস্ব ভাষায় কথা বিনিময়ের চ্যালেঞ্জের কথাও মনে করিয়ে দেন অ্যাজুলেই।

বাঙালির ভাষার অধিকার আদায়ের দিন একুশে ফেব্রুয়ারিকে ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কো আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে স্বীকৃতি দেয়।

ফলে মাতৃভাষার মর্যাদা রক্ষায় বাঙালির আত্মত্যাগের দিনটি এখন বিশ্বের সব ভাষাভাষীর অধিকার রক্ষার দিন।

দিনটির গুরুত্ব তুলে ধরে সদস্য সব রাষ্ট্রকে তা যথাযথভাবে পালনের আহ্বান জানান ইউনেস্কোর মহাপরিচালক অ্যাজু্লেই।

দিনটি পালনে প্যারিসে সংস্থার সদর দপ্তরেও বুধবার একটি সংলাপ আয়োজন করা হয়েছে, যার শিরোনাম দেওয়া হয়েছে, আমার ভাষা,আমার সম্পদ।

রক্তে শর্করার মাত্রা ইনসুলিন নিয়ন্ত্রণে পপকর্ন

পপকর্ন ফ্যাট ফ্রি, সুগার ফ্রি ও লো ক্যালরি খাবার। এক কাপ পপকর্নে মাত্র ৩০ ক্যালরি থাকে। অথচ আঁশযুক্ত খাবার হওয়ায় অনেকক্ষণ পেট ভরা রাখে। ক্ষুধা কম পায়। এভাবে ওজন কমাতে সাহায্য করে পপকর্ন।

অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টে সমৃদ্ধ পপকর্ন রক্তে ফ্রি-র‌্যাডিক্যালস-এর মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। যা চুল পড়া, অ্যালঝেইমার’স-এর মতো বয়সকালীন সমস্যা মোকাবিলায় সাহায্য করে।

পপকর্নে ফাইবার, মিনারেল, কার্বোহাইড্রেট, ভিটামিন ই, ভিটামিন বি কমপ্লেক্স পরিমাণ প্রচুর। যা হজমে সাহায্য করে ও পেট পরিষ্কার রাখে। পপকর্ন রক্তনালী ও ধমনীর দেওয়ালে কোলেস্টেরল জমতে বাধা দেয়। ফলে রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমে ও হার্টের স্বাস্থ্য ভাল রাখে। পপকর্ন রক্তে শর্করার মাত্রা ও ইনসুলিন নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে পপকর্ন। ডায়াবেটিস থাকলে নিয়মিত ডায়েটে ১ কাপ ঘরে তৈরি পপকর্ন রাখতে পারেন।

নওগাঁয় ওভারব্রিজে ধাক্কা লেগে ট্রেনের ছাদে থাকা ৪ যাত্রী নিহত

নওগাঁর রানীনগরে ওভারব্রিজে ধাক্কা লেগে ট্রেনের ছাদে থাকা চার যাত্রী নিহত হয়েছেন। বুধবার রাত ৩টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত দুজনের পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া গেছে। তারা হলেন, নওগাঁ জেলার সাপাহার থানার মালিপুর গ্রামের আব্দুল লতিফের ছেলে আমিনুল ইসলাম (৩০) ও দিনাজপুর চিরিরবন্দরের বড় হাকিমপুর ডাক্তার পাড়া এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (১৯)।

সান্তাহার জিআরপি থানার এসআই মতিউর রহমান বলেন, নিহতরা সবাই ঢাকার পোশাক শ্রমিক। আগামী তিন দিন ছুটি থাকায় ঢাকা থেকে দিনাজপুরগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনের ছাদে চড়ে তারা গ্রামের বাড়ি ফিরছিলেন। বুধবার রাত ৩টার দিকে ট্রেন নওগাঁর রানীননগর স্টেশনে অতিক্রম করার সময় ট্রেনের ছাদে থাকা চার যাত্রী ওভারব্রিজে ধাক্কা লেগে নিচে পড়ে যান। এতে ঘটনাস্থলেই চারজন মারা যান।

ধরা পড়া দুই আইএস যোদ্ধার বিচার হবে কোথায়?

সিরিয়ায় গত মাসে ধরা পড়া ইসলামিক স্টেটের দুই ব্রিটিশ জিহাদিকে কি গুয়ানতানামোয় পাঠানো হবে? নাকি তাদের বিচার হবে? তা যদি হয় কোথায় হবে? আমেরিকায় না আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে?

তাদের ভাগ্যে কি ঘটবে – এসব নিয়ে ব্রিটেন এবং আমেরিকা আলোচনা করছে।

বলা হচ্ছে আলেক্সান্ডা কোটি ও এল শাফি এলশেখ নামের দুই আইএস যোদ্ধা আইএস’র এমন একটি সেলের অংশ ছিল – যারা পশ্চিমা জিম্মিদের শিরশ্ছেদ করতো। এরা হচ্ছে চার জিহাদির একটি দলের জীবিত দুজন – যাদের ব্রিটিশ টানের ইংরেজির জন্য অন্য আইএস যোদ্ধারাই ১৯৬০ এর দশকের বিখ্যাত পপ গ্রুপের নামে তাদের নাম দিয়েছিল ‘বিটলস।’

এই দলের বাকি দুজনের একজন ছিলেন মোহামেদ এমওয়াজি – যার ক্যামেরার সামনে ছুরি হাতে জিম্মিদের শিরশ্ছেদ করার ভিডিও সারা দুনিয়ায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে। ২০১৬ সালে রাক্কার কাছে এক ড্রোন হামলায় তিনি নিহত হন। এ দলের আরেকজন তুরস্কের কারাগারে বন্দি।

আইএসের হাতে নিহত হয়েছেন ব্রিটিশ জিম্মি অ্যালান হেনিং এবং ডেভিড হেইনস। হেইনসের মেয়ে বেথানি বলেছেন, তিনি চান তার বাবার হত্যাকারীদের ধীর এবং যন্ত্রণাদায়ক মৃত্যু হোক এবং তিনি কোটে এবং এলশেখকে কাঠগড়ায় দেখতে চান।

কিন্তু এ দুজনের ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিল করা করা হয়েছে বলে শোনা যাচ্ছে। তাহলে এদের বিচার হবে কোথায়?

বলা হচ্ছে, এই দুই আইএস সদস্যকে হয়তো গুয়ানতানামো বে’-র মার্কিন সামরিক বন্দিশিবিরে পাঠানো হতে পারে। অথবা হয়তো জেমস ফোলি, পিটার কাসিগ এবং স্টিভ সটলফের মতো মার্কিন নাগরিকদের হত্যার অভিযোগে আমেরিকার আদালতেও বিচার হতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র প্রতিরক্ষা দপ্তর বলেছে, তারা এখনো বিকল্পগুলো বিবেচনা করছে।

অথবা তাদের হয়তো দি হেগের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতেও তোলা হতে পারে – যে আদালতে গণহত্যা, যুদ্ধাপরাধ, মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ এবং আগ্রাসনের বিচার হয়। তবে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের অনুরোধ ছাড়া – শুধুমাত্র কোনো দেশ বিচার না করলে বা করতে অক্ষম হলেই দি হেগে কারো বিচার হতে পারে।

আইএস যাদের শিরশ্ছেদ করেছিল তাদের মধ্যে দুজন হলেন জাপানি নাগরিক – হারুনা ইউকাওয়া এবং সাংবাদিক কেনজি গোতো। এ কারণে জাপানের মাটিতেও তাদের বিচার হতে পারে। অথবা এমনও হতে পারে যে তারা হয়তো সিরিয়াতেই রয়ে যাবে। কিন্তু সেখানকার পরিস্থিতি এমন যে কখন কি হয় কিছুই বলা যায় না।

স্প্যানিশ সাংবাদিক জাভিয়ার এস্পিনোজা আইএসের হাতে আটক থাকার সময় তাকে হত্যা করার ভয় দেখানো হয়েছিল। তিনি বলেন, এদের বিচার কোথায় হলো তাতে কিছু আসে যায় না। বিচার হলেই হলো।

শহীদ মিনারে হাজারো মানুষের ঢল

গভীর ভালোবাসা আর বিনম্র শ্রদ্ধায় ভাষা শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানালো জাতি। একুশের প্রথম প্রহরে বাংলা বর্ণমালার সৈনিকদের অবদানের দিনগুলোকে স্মরণ করলো জাতি। একুশের প্রথম প্রহরে রাষ্ট্রের শীর্ষ ব্যক্তি থেকে শুরু করে সর্বস্তরের মানুষের পদভারে জেগে উঠে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। রক্ত দিয়ে যে মিনার গড়েছেন ভাষা শহীদ-সংগ্রামীরা, ভালোবাসার অর্ঘ্যে তা ভরিয়ে তোলে জনতা।

রাত ১১টার পর থেকেই শাহবাগ, আজিমপুর, নীলক্ষেতসহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যাওয়ার প্রতিটি প্রবেশপথেই ছিল মিছিলের সারি। শহীদ মিনারের আশপাশের এলাকায় মাইকে বাজানো হয়, ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি/ আমি কি ভুলিতে পারি’।

রাত ১২টা ১ মিনিটে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। এরপর একে একে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, মন্ত্রিপরিষদ সদস্যবর্গ এবং বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপর আওয়ামী লীগসহ ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ শহীদ বেদিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন। ১৪ দলের পর বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ দলীয় নেতাদের নিয়ে শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

এরপর বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সহযোগী সংগঠন, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ছাত্র, যুব, শ্রমিক, কৃষক সংগঠনের নেতা-কর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষ একে-একে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানান।

দীর্ঘ সারিতে দাঁড়িয়ে শহীদ মিনারের বেদীতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করেন রাজনীতিক, কূটনীতিক, শিক্ষাবিদ, শিক্ষক, ছাত্রসহ সকল শ্রেণি-পেশা-বয়সের মানুষ। মনোরম আল্পনা আঁকা মিনার প্রাঙ্গণে খালিপায়ে ভীড় করেন তারা। রাত ১২টায় শহীদ মিনারে মানুষের যে ঢল নামে, তা অব্যাহত থাকে ভোর পর্যন্ত।

১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারির এই দিনে রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে ছাত্র-জনতার আন্দোলনে সালাম, জব্বার, শফিক, বরকত ও রফিকসহ নাম না জানা শহীদের রক্তের বিনিময়ে বাঙালি জাতি পায় মাতৃভাষার মর্যাদা। পরে ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর ঐতিহাসিক মহান একুশের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করে ইউনেস্কো। এরপর ২০০০ সাল থেকে প্রতিবছর বাংলাদেশসহ আন্তর্জাতিক পর্যায়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে দিনটি।

মালদ্বীপে ‘ভারতের হস্তক্ষেপ ঠেকাতে’ ১১ চীনা যুদ্ধজাহাজ!

:: মালদ্বীপে চলমান সাংবিধানিক ও রাজনৈতিক অচলাবস্থার মধ্যে ভারত ও চীনের মধ্যে শুরু হয়েছে প্রচ্ছন্ন শক্তির লড়াই। এরই অংশ হিসেবে চীন পূর্ব ভারত মহাসাগরে ১১টি যুদ্ধজাহাজ পাঠিয়েছে। চীনের একটি ওয়েবসাইট এই মর্মে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ওই প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম মঙ্গলবার জানায়, চলতি মাসের গোড়ার দিকে যুদ্ধজাহাজের এই বিশাল বহরটি পাঠিয়েছে চীন। এই বহরটিতে বেশ কয়েকটি ডেস্ট্রয়ার, ৩০ হাজার টন ধারণ ক্ষমতার একটি সুবিশাল উভচর যুদ্ধজাহাজ এবং তিনটি সাপোর্ট ট্যাঙ্কার রয়েছে।
এ বিষয়ে চীনের গণমুক্তি ফৌজ বা পিপলস লিবারেশন আর্মি শুক্রবার তাদের টুইটার-সদৃশ অফিসিয়াল ওয়েইবো অ্যাকাউন্টে (ঙভভরপরধষ ঞরিঃঃবৎ-ষরশব ডবরনড় ধপপড়ঁহঃ) বেশ কিছু ছবি এবং প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাতে বলা হয়েছে, তাদের এই যুদ্ধজাহাজগুলো এখন পূর্ব ভারত মহাসাগরে উদ্ধার অভিযানের মহড়া শুরু করেছে।
ভারত প্রেসিডেন্ট ইয়ামিন গাইয়ুমের বিরোধী শিবিরের পক্ষে আর চীন গাইয়ুমের পক্ষে স্পষ্ট অবস্থান নিয়েছে। প্রেসিডেন্ট গাইয়ুম এরই মধ্যে চীনে ‘ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড’ মহাপরিকল্পনায় যুক্ত হওয়ার জন্য চুক্তি করেছেন। চীন ৪ লাখ লোকের সার্কভুক্ত খুদে দ্বীপদেশটিতে বিভিন্ন প্রকল্পে ব্যাপক বিনিয়োগে হাত দিয়েছে।
এ অবস্থায় নাখোশ নয়াদিল্লি মালদ্বীপে চীনের অর্থনৈতিক ও সামরিক উপস্থিতিকে ভারতের জন্য নিরাপত্তা ঝুঁকি হিসেবে বর্ণনা করে আপত্তি জানিয়েছে। কিন্তু মালদ্বীপ সরকার ভারতের কথায় কান না দিয়ে চীনের সঙ্গে সখ্য গড়ে তুলেছে। এ অবস্থায় মালদ্বীপ সঙ্কট তার নিজের সীমানা ছাড়িয়ে বহুদূর বিস্তৃত হতে চলেছে। যুক্তরাষ্ট্রও ভারতের অবস্থানের পক্ষে।
এরই মধ্যে মালদ্বীপে কোনো রকম সামরিক ও রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ করা থেকে বিরত থাকতে চীন পরোক্ষভাবে ভারতকে হুঁশিয়ার করে দিয়েছে। চীনের গণমাধ্যমগুলো এই হুঁশিয়ারির উল্লেখ করে বলেছে, এরকম কিছু হলে চীন উচিত জবাব দেবে। ১১টি যুদ্ধজাহাজ পাঠিয়ে চীন সেকথারই প্রমাণ দিল। তবে যুদ্ধজাহাজের বহর পাঠাবার আগে চীন তার নাগরিকদের রাজনৈতিক সঙ্কটের অবসান না হওয়া পর্যন্ত মালদ্বীপ ভ্রমণ এড়িয়ে যেতে বলেছে। একটি আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা চীনের একসঙ্গে এতোগুলো যুদ্ধজাহাজ মোতায়েনের কারণ ও উদ্দেশ্য সম্পর্কে জানতে চায় চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে। কিন্তু তারা এ প্রশ্নের কোনো জবাব দেয়নি। চীনা যুদ্ধজাহাজের এই বহর কতদিন সেখানে থাকবে সেটাও স্পষ্ট নয়। সূত্র : এএফপি।

রাজধানীসহ সারাদেশে র‌্যাবের নিরাপত্তা জোরদার

শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন উপলক্ষে বুধবার রাজধানীসহ সারাদেশে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার ঢাকা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও আশপাশের এলাকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন ও পর্যবেক্ষণ শেষে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ একথা বলেন।

জঙ্গিদের নেটওয়ার্ক ভেঙ্গে গেছে উল্লেখ করে র‌্যাব ডিজি বলেন, একুশে ফেব্রুয়ারির প্রথম প্রহর থেকে দিনভর সারাদেশে কোনো ধরনের জঙ্গি তৎপরতা যেন না হয়, সেদিকে বিশেষভাবে লক্ষ্য রাখা হবে।

তিনি বলেন, এ উপলক্ষে গোয়েন্দা নজরদারী বাড়ানো হয়েছে। নাগরিকদের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে যা করা প্রয়োজন র‌্যাবের পক্ষ থেকে সবই করা হচ্ছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে র‌্যাব মহাপরিচালক বলেন, জঙ্গিদের স্পেসিফিক কোনো থ্রেট নেই কিংবা নির্দিষ্ট কোনও হুমকি নেই। তবুও আমরা সবসময় সতর্ক থাকি। বিষয়টা মাথায় রেখেই পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বেনজীর আহমেদ বলেন, রাষ্ট্রীয় অন্যান্য গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে সমন্বয় করে সবসময় তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। এছাড়া র‌্যাবের নিজস্ব গোয়েন্দারাও প্রতিনিয়ত জঙ্গিদের গতিবিধির প্রতি নজর রাখছেন।

তিনি বলেন, রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারকে ৫টি সেক্টরে বিভক্ত করে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকায় আমাদের কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। সেখান থেকে সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে পুরো এলাকা মনিটরিং করা হবে। এ ছাড়া বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট, ডগ স্কোয়াড ও স্পেশাল ইউনিটও সর্বদা প্রস্তুত থাকবে। পোশাকধারী সদস্যের পাশাপাশি সাদা পোশাকেও র‌্যাব সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। সার্বক্ষণিকভাবে ওয়াচ টাওয়ারের মাধ্যমে শহীদ মিনার এলাকা পর্যবেক্ষণ করা হবে।

এর আগে আজ সকালে র‌্যাবের বোমা ডিসপোজাল ইউনিট, ডগ স্কোয়াড ও সুইপিং টিম পুরো শহীদ মিনার এলাকা পর্যবেক্ষণ ও সুইপিং করে।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার মুখপাত্র কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান, উপ-পরিচালক মেজর রইসুল আযম মনি,সহকারী পরিচালক মেজর আব্দুল্লাহ আল মেহেদীসহ র‌্যাবের অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন। বাসস।

ভারত নয়, চীনের কাছে শেয়ার বিক্রি করছে ঢাকা!

শেয়ারবাজারের এক বিশাল অংশের শেয়ার চীনের কাছে বিক্রির ব্যাপারে রাজি হয়েছে বাংলাদেশ। মঙ্গলবার বাংলাদেশের একজন কর্মকর্তা এ তথ্য জানিয়েছেন। পাকিস্তানের শীর্ষ দৈনিক ডন নিউজের অনলাইনে এ ব্যাপারে একটি প্রতিবেদনও প্রকাশ হয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চীনের পরেই শেয়ার কেনার ব্যাপারে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে ভারত। তবে ভারতের কাছে শেয়ার বিক্রি না করে চীনের কাছে বিক্রি করছে বাংলাদেশ।

গত ১০ ফেব্রুয়ারি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ এক-চতুর্থাংশ শেয়ার চীনের কাছে বিক্রির প্রস্তাব গ্রহণ করে। তবে বাংলাদেশের কর্মকর্তারা এ ব্যাপারে আরো সূক্ষ্ম বিশ্লেষণের জন্য কয়েকদিন সময় নেন।

বাংলাদেশের শেয়ারবাজারের মুখপাত্র শফিকুর রহমান বলেন, চীনের প্রস্তাব মেনে নেওয়ার ব্যাপারে সমর্থন দিয়েছেন বোর্ডের সদস্যরা। কারণ চীনের প্রস্তাব নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বিদের চেয়ে বেশি।

চলতি মাসেই শেয়ার বিক্রির টেন্ডারে প্রতি শেয়ারের দাম ১৫ টাকা বলেছে মুম্বাইভিত্তিক স্টক এক্সচেঞ্জ। অন্যদিকে প্রতি শেয়ারের দাম ২২ টাকা দিতে চায় চীন। এছাড়া আরো ৩৭ মিলিয়ন ডলার সহায়তার প্রস্তাবও দেয় চীন।

তবে শুরুর দিকে অভিযোগ ওঠে, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন অনৈতিকভাবে ভারতের কাছে শেয়ার বিক্রির পাঁয়তারা করছে। এ ব্যাপারে বাংলাদেশি কিছু অ্যাক্টিভিস্টরা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে প্রতিবাদও করেন। স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরেও বিষয়টি উঠে আসে।

বার্লিনভিত্তিক দুর্নীতি দমন বিষয়ক সংস্থার বাংলাদেশ অফিস থেকে এ ব্যাপারে নিন্দাও করা হয়। এরকম একটি পরিস্থিতিতে চীনের কাছে শেয়ার বিক্রির সিদ্ধান্ত নিল বাংলাদেশ।

সূত্র : ডন

আগামী বছর নতুন পদ্ধতিতে এসএসসি

আগামী বছর মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষা নতুন প্রশ্নপত্র ও নতুন পদ্ধতিতে নেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। তবে নতুন পদ্ধতি কী হবে, তা আলোচনা করে ঠিক করা হবে। আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত আন্তমন্ত্রণালয়ের সভায় এ উদ্যোগের কথা জানানো হয়।

সভা শেষে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বিভাগের সচিব সোহরাব হোসাইন সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা আশা করছি, আগামী বছর থেকে এসএসসি পরীক্ষা নতুন পদ্ধতিতে নিতে পারব। সভায় সবাই প্রশ্নব্যাংক তৈরির বিষয়ে একমত হয়েছেন।’

পাবলিক পরীক্ষাসংক্রান্ত এ সভায় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও বিভিন্ন সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

পরীক্ষায় এমসিকিউ (বহুনির্বাচনী প্রশ্ন) থাকবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, ব্যক্তিগতভাবে তিনি আগে থেকেই এমসিকিউ বন্ধের বিষয়ে বলে আসছেন। প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে বলার পর এটা এখন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে করা হবে।

চলতি এসএসসি পরীক্ষায় একের পর এক প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় এই জরুরি সভা ডাকা হয়। তবে সভায় আগামী দুই এপ্রিল থেকে শুরু উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষা কীভাবে প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধ করা যায়, সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

সোহরাব হোসাইন বলেন, যেহেতু আগামী এইচএসসি পরীক্ষা নতুন পদ্ধতিতে নেওয়ার সুযোগ নেই। তাই এটা কীভাবে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করা যায়, সে বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে। সভার সিদ্ধান্তগুলো অব্যাহত থাকবে।

প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, পরীক্ষার প্রশ্নপত্র যেকোনো জায়গায়, যে কারও হাতে পেলে আইনের আওতায় আনা হবে। চলতি এসএসসি পরীক্ষায় এ পর্যন্ত ১৫২ জনকে আটক করা হয়েছে। অপরাধীদের আটকের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

গৃহকর্মী থেকে মাইক্রোসফটের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর!

গৃহকর্মী থেকে হয়ে গেলেন মাইক্রোসফটের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর! এমনও কি সম্ভব? গল্পের মতো শোনালেও বিষয়টি সত্যি হয়েছে কুড়িগ্রামের ফাতেমার বেলায়। বাল্যবিয়ের হাত থেকে মুক্ত হওয়া এই কিশোরী এখন জগৎখ্যাত প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি। স্বপ্ন দেখে বড় হয়ে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে নারীদের অগ্রগতিতে অবদান রাখার

কুড়িগ্রামের নিভৃত পল্লী নাগেশ্বরী উপজেলার রামখানা গ্রামের মেয়ে ফাতেমা। রীতিমত জীবনযুদ্ধে জয়ী। সদিচ্ছা থাকলে যে অনেক কিছুই করা সম্ভব, তারই যেন জ্বলন্ত উদাহরণ।

অভাবের সংসারে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ার সময় একটি বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ নেয় ফাতেমা। দুই বছর পর হঠাৎ ডাক আসে বাড়ি থেকে। হাসিমুখে গিয়ে ফাতেমা দেখে, তার বিয়ে ঠিক হয়েছে। মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে ফাতেমার। বাল্যবিয়ের হাত থেকে তাকে রক্ষায় এগিয়ে আসে স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবীদের সংগঠন ‘আশার আলোর পাঠশালা’র প্রতিষ্ঠাতা বিশ্বজিত বর্মণ। ফাতেমার বাবা-মাকে বুঝিয়ে তার লেখাপড়ার দায়িত্বও নেয় তারা। গল্পের শুরুটাও এখান থেকেই।

লেখাপড়ার পাশাপাশি স্থানীয় ওয়ার্ল্ড উইনার আইটি পাঠশালা থেকে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ নেয় ফাতেমা। হঠাৎ একদিন মাইক্রোসফটের উর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা স্কুল পরিদর্শনে এসে ফাতেমার অদম্য প্রাণশক্তির গল্প শোনেন। ব্যাস, পাল্টে যায় কিশোরী ফাতেমার জীবন। তাকে মনোনীত করেন মাইক্রোসফটের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে।

ফাতেমা খাতুন জানান, তার স্বপ্ন ছিল পড়াশোনা করে বড় হবে। তিনি বলেন, বিশ্বজিত স্যার আমাকে তথ্য প্রযুক্তি খাতের সঙ্গে পরিচয় করে দিয়েছেন। আমার স্বপ্ন বড় হয়ে নারীদের আইটি শিক্ষায় অবদান রাখবো।

ওয়ার্ল্ড উইনার আইটি পাঠশালার প্রতিষ্ঠাতা বিশ্বজিত বর্মন বলেন, আমরা চেষ্টা করেছি ফাতেমাকে পড়াশোনার পাশাপাশি আইটি শিক্ষায় শিক্ষিত করতে। সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের সময়োপযোগী প্রযুক্তি শিক্ষায় শিক্ষিত করে তোলায় আমাদের লক্ষ্য।

ফাতেমাকে নিয়ে একটি ডকুমেন্টরিও করেছে মাইক্রোসফট। যেখানে তুলে ধরা হয়েছে উঠেছে তার উৎসাহ আর জীবনযুদ্ধের গল্প। সূত্র: যমুনা টিভি