ট্রাম্প্রের ভ্রমণ বাতিলের দাবিতে যুক্তরাজ্যে বিক্ষোভ

গত কালকের ১০ নং ডাউনিং ষ্ট্রীটে ফেসবুকের মাধ্যমে আয়োজিত ট্রাম্প কর্তৃক “মুসলিম ব্যান” বিরোধী যে বিশাল সমাবেশ ছিল তাতে মুসলমানের উপস্থিতি ১% ছিল কিনা সন্দহ আছে। অথচ লন্ডনে মুসলিম সেন্টার, ইষ্ট লন্ডনে চায়ের কাপে ঝড়, সভা-সমাবেশ, দালাল-পেশাজীবী-খদ্দের.. হকার থেকে শুরু তরে পথের পতিতা পর্যন্ত বহু মুসলিম আছে ।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে যুক্তরাজ্যে রাষ্ট্রীয় সফরের আমন্ত্রণ জানানোর সিদ্ধান্ত বাতিল করতে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে গত সোমবার রাজি হননি। ট্রাম্পকে আমন্ত্রণের ওই সিদ্ধান্ত বাতিলের সপক্ষে যুক্তরাজ্যের ১৫ লাখের বেশি মানুষ স্বাক্ষর করেছেন। আর দেশটিতে বহু জায়গায় বিক্ষোভ হচ্ছে।
এত কিছুর পরও প্রধানমন্ত্রী মে নিজ সিদ্ধান্তে অনড় রয়েছেন। এটির বাস্তবায়ন হলে ট্রাম্পকে সম্মান জানাবে ব্রিটিশ পার্লামেন্ট। রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথও যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রেসিডেন্টকে স্বাগত জানাতে পারেন। প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর জানিয়েছে, থেরেসা মে যুক্তরাষ্ট্রে বিতর্কিত নির্বাহী আদেশে শরণার্থী ও মুসলিমপ্রধান দেশগুলোর নাগরিকদের ওপর নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে একমত নন।
হোয়াইট হাউসে গিয়ে থেরেসা মে গত শুক্রবার ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠকের সময়ই তাঁকে রাষ্ট্রীয় সফরের আমন্ত্রণ জানান। যুক্তরাজ্য ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ছেড়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত (ব্রেক্সিট) নিয়েছে। ব্রেক্সিট-পরবর্তী বাণিজ্য সম্পর্কের উন্নয়নের লক্ষ্যে ট্রাম্পের আসন্ন যুক্তরাজ্য সফর কাজে লাগবে বলে বর্তমান ব্রিটিশ সরকার মনে করছে। কিন্তু বিতর্কিত ধনকুবের ট্রাম্পের সঙ্গে মের সুসম্পর্ককে যুক্তরাজ্যের জনসাধারণ অপছন্দ করেছে। কারণ, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রের ওই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার নিন্দা জানাননি। তিনি এটাকে মার্কিনদের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার বলেই ক্ষান্ত হয়েছেন।
কিন্তু ট্রাম্পের ওই নিষেধাজ্ঞা এবং তাঁকে আমন্ত্রণ জানাতে মের উদ্যোগের প্রতিবাদে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন শহরে লাখো মানুষ বিক্ষোভ করেছে। লন্ডনে বিক্ষুব্ধ জনতা ‘নাৎসিদের সঙ্গে হাত মেলাবেন না’, ‘বর্ণবাদকে না বলুন, ট্রাম্পকে না বলুন’, ‘ট্রাম্প, আপনার জন্য লজ্জা’ প্রভৃতি স্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড নিয়ে সোমবার মিছিল-সমাবেশ করেছে। আর ইংল্যান্ডের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর ম্যানচেস্টারে বিক্ষোভকারীরা ‘কোনো রাষ্ট্রীয় সফর নয়’ এবং ‘শরণার্থীরা এখানে স্বাগত’ প্রভৃতি স্লোগান দেয়।
বিরোধী দল লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন এবং লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি ও স্কটিশ ন্যাশনাল পার্টির নেতারা ট্রাম্পের জন্য রাষ্ট্রীয় সফরের আমন্ত্রণ বাতিল করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

জামায়াতকে নিষিদ্ধ করা হবে

মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, ‘জামায়াতকে নিষিদ্ধ করা হবে। তাদের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা হবে। যুদ্ধাপরাধীদের সম্পদ ইতোমধ্যে বাজেয়াপ্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তাদের সম্পদ রাষ্ট্রীয় সম্পদে পরিণত করা হবে।’
মঙ্গলবার বিকেলে শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলা নবনির্মিত মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন কালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘প্রত্যেক মুক্তিযোদ্ধাকে ২০ হাজার টাকা করে বোনাস দেওয়া হবে। আগামী ২৬ মার্চের পূর্বেই তা পরিশোধ করা হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করা হবে। সবাই যাতে স্বাস্থ্য সেবা পায়, কেউ যেন বিনা চিকিৎসায় মারা না যায় সে জন্য শেখ হাসিনা এ ব্যবস্থা করবেন।’

ভেদরগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডর আলী আকবর এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন- সাবেক ডেপুটি স্পীকার কর্নেল অব শওকত আলী এমপি, নাহিম রাজ্জাক এমপি, ন্যাশনাল ব্যাংকের চেয়ারম্যান বিশিষ্ট সমাজ সেবক বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নুল হক সিকদার ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডর আ. সাত্তার খান।

এর আগে, সকাল ১১টায় মন্ত্রী শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলা মুক্তিযোদ্ধাদের নবনির্মিত কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন করেন। চলতি অর্থ বছরে এলজিইডি প্রায় সাড়ে কোটি টাকা ব্যয়ে এ ভবন দুটি নির্মাণ করেছেন।

গাজরের লাড্ডু

মিষ্টিজাতীয় খাবারের মধ্যে লাড্ডু অনেকেই পছন্দ করে। বাজারের বিভিন্ন ধরনের লাড্ডু পাওয়া যায়। তবে আপনি চাইলে নিজেই বানাতে পারেন এসব মজাদার লাড্ডু। এখন চলছে শীত মৌসুম। তাই ঘরে বসে গাজর দিয়ে তৈরি করতে পারেন গাজরের লাড্ডু। জেনে নিন প্রণালীটি।
উপকরণ: গাজর কুচি – ২ কাপ, কনডেন্সড মিল্ক – ১ ক্যান, নারিকেল – ১/২ কাপ, গুড়া দুধ – ১/২ কাপ, দুধ – ২ কাপ (লিকুইড), মাওয়া – ১/২ কাপ, এলাচ গুড়া – ১/৪ চা চামচ ও ঘি – ১ টেবিল চামচ।
প্রণালী: প্রথমে প্যানে ১ টেবিল  ঘি দিয়ে গাজরগুলোকে ৭-৮ মিনিট ভাজতে হবে। তারপর ২ কাপ লিকুইড দুধ দিয়ে ১৫-২০ মিনিটের মতো রান্না করতে হবে। দুধ শুকিয়ে গাজর নরম হয়ে গেলে কন্ডেন্স মিল্ক, গুড়া দুধ, নারকেল আর এলাচ গুড়া দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে আরো প্রায় ৮-১০ মিনিট মাঝারি আঁচে রান্না করতে হবে। হালুয়া শুকিয়ে ঘন আর আঠালো হয়ে গেলে নামিয়ে একটু ঠাণ্ডা লাড্ডু বানিয়ে মাওয়ায় গড়িয়ে নিতে হবে।

মুঠোফোনে প্রেম, বেড়াতে নিয়ে ধর্ষণের পর হত্যা

বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলার কলেজছাত্রী সুরভী আকতারকে মুঠোফোনে প্রেমের ফাঁদে ফেলে যমুনার দুর্গম চরে বেড়াতে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়। ওই ছাত্রীর কথিত প্রেমিক মাসুদ রানা ওরফে সাগর (২৫) ও তাঁর পাঁচ বন্ধু এ ঘটনা ঘটান।

মাসুদ রানা ও তাঁর এক বন্ধু মামুন আহমেদ (১৯) এ হত্যার বর্ণনা দিয়ে গত সোমবার আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। ওই দিন সন্ধ্যায় বগুড়ার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মো. আবু রায়হানের আদালতে তাঁরা ওই জবানবন্দি দেন। তাঁদের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে আজ মঙ্গলবার তাঁদের আরেক সহযোগী সারিয়াকান্দি উপজেলার জোড়গাছা গ্রামের পিকআপ ভ্যানচালক সাইদুর রহমানকে (২৬) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এর আগে গত রোববার সুরভী আকতারের সঙ্গে মুঠোফোনে কথোপকথনের সূত্র ধরে সারিয়াকান্দি থানার পুলিশ ঢাকা থেকে কথিত প্রেমিক মাসুদ ও তাঁর বন্ধু মামুনকে গ্রেপ্তার করে। মাসুদ বগুড়ার ধুনট উপজেলার কালেরপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। মামুন একই উপজেলার হটিয়ারপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। দুজনই পেশায় রাজমিস্ত্রি।

বগুড়ার গাবতলী উপজেলার তরনীহাট ডিগ্রি কলেজের স্নাতক প্রথম বর্ষের ছাত্রী সুরভী আকতার ৪ জানুয়ারি কলেজে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন। সুরভী সারিয়াকান্দি উপজেলার ভেলাবাড়ি ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামের দিনমজুর সুরুত জামানের মেয়ে। নিখোঁজের দুই দিন পর সুরুত জামান সারিয়াকান্দি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। ১০ জানুয়ারি সারিয়াকান্দি উপজেলার যমুনার দুর্গম চরাঞ্চল দক্ষিণ ধারাবর্ষা এলাকার একটি ঝাউবন থেকে সুরভীর লাশ উদ্ধার করা হয়।

সারিয়াকান্দি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এস এম ওয়াহেদুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, সুরভীর খুন হওয়ার আগে কয়েক মাসের কথোপকথনের রেকর্ড সংগ্রহ করা হয়। এর ভিত্তিতে মাসুদ রানার খোঁজখবর করা হয়। খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, লাশ উদ্ধারের পরের দিন থেকেই গা ঢাকা দিয়েছেন মাসুদ। পরে ঢাকা থেকে প্রথমে মাসুদ রানা এবং তাঁর স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে মামুন আহমেদকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁরা দুজনই হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। আরও যে তিনজন ঘটনার সঙ্গে জড়িত বলে তাঁরা জবানবন্দিতে জানিয়েছেন, তাঁরা হলেন গাবতলী উপজেলার সোনামুয়া গ্রামের সিএনজিচালক আবদুল হান্নান (৩০), ধুনট উপজেলার কালেরপাড়া গ্রামের কালু মিয়া (৩৫) ও রেজাউল করিম (২৮)।

আদালত-সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জবানবন্দিতে মাসুদ রানা আদালতকে জানিয়েছেন, সিএনজিচালক আবদুল হান্নান তাঁর পূর্বপরিচিত। তাঁর কাছ থেকেই মাসুদ সুরভীর মুঠোফোন নম্বর সংগ্রহ করেন। এরপর মুঠোফোনে তাঁদের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তিন মাস ধরে মুঠোফোনে কথোপকথনের একপর্যায়ে ৪ জানুয়ারি সকালে চরে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে সুরভীকে ধুনটের গোসাইবাড়ি আসতে বলেন মাসুদ। আবদুল হান্নান তাঁর সিএনজিতে সুরভীকে সেখানে পৌঁছে দেন। এরপর আওলাকান্দি ঘাট থেকে যমুনা নদী পাড়ি দিয়ে সুরভীকে নিয়ে মাসুদ বোহাইল চরে পৌঁছান। সারা দিন চরে সময় কাটানোর পর সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলে বাড়ি ফেরার তাগাদা দেন সুরভী। এ সময় পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী মাসুদ রানা এবং তাঁর পাঁচ বন্ধু মিলে সুরভীকে চরের একটি ঢোলকলমির ঝাউবনে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। সুরভী চিৎকার করেন এবং একপর্যায়ে পুলিশকে ঘটনাটি বলে দেওয়ার হুমকি দেন। তখন হান্নান, কালু ও রেজাউল সুরভীর গলাটিপে ধরেন। মাসুদ ও মামুন কোমর এবং হাত, আর সাইদুর পা চেপে ধরেন। মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর লাশ ফেলে তাঁরা পালিয়ে যান।

চলে গেল পৃথিবীর অন্যতম বয়োবৃদ্ধ হাতি ‘ইন্দিরা’

ভারত তথা বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক হাতিগুলোর অন্যতম ‘ইন্দিরা’ না ফেরার দেশে। কর্ণাটক প্রদেশের এলিফ্যান্ট ক্যাম্পের এই হাতির বয়স ৮৫ থেকে ৯০  বছর বলে জানিয়েছে পশু চিকিৎসক।

বেশ অনেকদিন ধরেই অসুস্থ ছিল হাতিটি এবং খাওয়া দাওয়া ছেড়ে দিয়েছিল। হাতি সাধারণত ৭০ বছর পর্যন্ত বাঁচে। রেকর্ড অনুযায়ী বন্দি অবস্থায় সবচেয়ে বেশি বয়সে মারা যাওয়া হাতির নাম লিন ওয়াং। তাইপে চিড়িয়াখানায় ২০০৩ সালে ৮৬ বছর বয়সে মারা যায় ওই হাতিটি।

কর্ণাটকে ইন্দিরার বয়সী আরো একটি হাতি জীবিত আছে বলে দাবি করা হচ্ছে। এই হাতিটিকে কর্ণাটকের সাকরেবাইল হাতি প্রশিক্ষণ ও  পুনর্বাসন কেন্দ্রে ৫০ বছর আগে নিয়ে আসা হয়েছিল। ইন্দিরাকে ১৯৬৮ সালে কাক্কানাকোটে বন থেকে আটক করা হয়, এবং তার মাধ্যমে বন্য হাতি ধরা বা দমানো হত। প্রচুর ‘সবুজ খাবার’ তার আয়ুর রহস্য বলে ধারণা করছে পশু বিশেষজ্ঞরা। বিবিসি।

এসএসসি-সমমান পরীক্ষা বৃহস্পতিবার, পরীক্ষার্থী ১৭ লাখ ৮৬ হাজার

আগামী বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) থেকে শুরু হচ্ছে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা। তত্ত্বীয় পরীক্ষা শেষ হবে ২ মার্চ। ব্যবহারিক পরীক্ষা ৪ মার্চ হতে শুরু হয়ে শেষ হবে আগামী ১১ মার্চ। মঙ্গলবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।
শিক্ষামন্ত্রী জানান, এবারের পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন ১৭ লাখ ৮৬ হাজার ৬১৩ জন শিক্ষার্থী। এরমধ্যে ৯ লাখ ১০ হাজার ৫০১ জন ছাত্র এবং ৮ লাখ ৭৬ হাজার ১১২ জন ছাত্রী।
তিনি আরো জানান, গতবারের চেয়ে এবারের পরীক্ষায় এক লাখ ৩৫ হাজার ৯০ শিক্ষার্থী বেড়েছে। গত বছর এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১৬ লাখ ৫১ হাজার ৫২৩ পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছিল।
তথ্য অনুযায়ী, এবার আটটি বোর্ডের অধীনে এসএসসিতে ১৪ লাখ ২৫ হাজার ৯০০ জন, মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে দাখিলে ২ লাখ ৫৬ হাজার ৫০১ ও এসএসসি ভোকেশনালে (কারিগরি) এক লাখ ৪ হাজার ২১২ শিক্ষার্থী পরীক্ষা দেবে। এবার ৩ হাজার ২৩৬টি কেন্দ্রে ২৮ হাজার ৩৪৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দেবে।

৩৪ ঔষুধ কোম্পানির বিষয়ে হাইকোর্টের রায় ৯ ফেব্রুয়ারি

৩৪টি ঔষুধ কোম্পানির বিরুদ্ধে দায়েরকৃত রিট আবেদনের ওপর চূড়ান্ত শুনানি শেষ হয়েছে। আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি এ বিষয়ে রায় ঘোষণা করবে হাইকোর্ট।
মঙ্গলবার বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের ডিভিশন বেঞ্চ শুনানি শেষে রায়ের জন্য এ দিন ধার্য করে দেন।
গত বছরের ৭ জুন হাইকোর্ট ২০টি ঔষুধ কোম্পানির লাইসেন্স কেন স্থায়ীভাবে বাতিল এবং ১৪টি কোম্পানির সব ধরনের এন্টিবায়েটিক উৎপাদন বন্ধের কেন নির্দেশ দেয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করে। হিউম্যান রাইটস এন্ড পীস ফর বাংলাদেশের পক্ষে করা এক আবেদনের ওপর প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আদালত এ রুল জারি করে।
রিটকারীর পক্ষে আইনজীবী মনজিল মোরসেদ এবং কোম্পানিগুলোর পক্ষে আইনজীবী মওদুদ আহমদ, হাবিবুল ইসলাম ভূইয়া, এজে মোহাম্মদ আলী, তানজীব-উল আলম, একেএম বদরুদ্দোজা বাদল প্রমুখ শুনানি করেন। আট কার্যদিবস ধরে এই রুলের ওপর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।
প্রসঙ্গত গত ২১ এপ্রিল ‘জীবন রক্ষাকারী ঔষুধে ভেজাল’ শিরোনামে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। ওই প্রতিবেদনে ওই ২০টি ঔষুধ কোম্পানির ঔষুধে ভেজাল সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করা হয়। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, সংসদীয় স্থায়ী কমিটি কর্তৃক গঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটি এসব ঔষুধ কোম্পানির ঔষুধ উৎপাদন ও লাইসেন্স বাতিলের সুপারিশ করে। কিন্তু দীর্ঘ দিনেও সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করেনি সরকার। এ পরিস্থিতিতে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন ‘হিউম্যান রাইটস এন্ড পীস ফর বাংলাদেশের’ পক্ষে অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ।

বাংলাদেশের বাজারে ফিরল নকিয়ার ফোন

বাংলাদেশের বাজারে ‘নকিয়া ১৫০’ মডেলের হ্যান্ডসেট বিক্রির ঘোষণা দিয়েছে ফিনল্যান্ডের এইচএমডি গ্লোবাল। এটি ২ দশমিক ৪ ইঞ্চি পর্দার ফিচার ফোন। আজ মঙ্গলবার এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নতুন উদ্যোগে নকিয়া ব্র্যান্ডের ফিচার ফোন বাজারজাত করবে এইচএমডি। এ ছাড়া থাকবে নানা স্মার্টফোন। নকিয়া ব্র্যান্ডের ফোন বিপণনের দায়িত্ব নিয়ে যাত্রা শুরু করার মাত্র কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই এইচএমডি নতুন এই হ্যান্ডসেট বাজারে ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছে।

এইচএমডি নকিয়া ফোন বিক্রির জন্য লাইসেন্স কিনেছে। এর সদর দপ্তর ফিনল্যান্ডে। গ্রাহকদের জন্য নতুন প্রজন্মের ফোন তৈরিতে কাজ করবে প্রতিষ্ঠানটি।

‘নকিয়া ১৫০’ ফোনটি সম্পর্কে বলা হয়েছে, সেটের আবরণে থাকবে পলিকার্বনেট শেল। এতে কোনো স্ক্র্যাচ বা দাগ পড়বে না। এতে দুটি সিম ব্যবহার করতে পারবেন গ্রাহকেরা। এফএম রেডিও, এমপিথ্রি প্লেয়ার, এলইডি টর্চলাইট আছে এতে। এর টকটাইম হবে ২২ ঘণ্টা। এটি চার্জ হবে মাইক্রো-ইউএসবি চার্জারে। ফোনে ক্ল্যাসিক স্নেক জেনজিয়াসহ বিভিন্ন গেম থাকবে। ফোনটির দাম হবে ২ হাজার ৪৯৯ টাকা। বিজ্ঞপ্তি।

ঢাকার নেতারা কেউ এলাকায় ভাব নেবেন না: কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘ঢাকার নেতারা কেউ এলাকায় গিয়ে ভাব নেবেন না। আমাদের নেত্রী নিতেও জানেন, বাদ দিতেও জানেন।’ আগামী নির্বাচনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাঠপর্যায়ে খোঁজখবর নিচ্ছেন বলেও জানান তিনি।

আজ মঙ্গলবার বাগেরহাটের খানজাহান আলী কলেজমাঠে জেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ প্রতিনিধি সভায় ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আওয়ামী লীগ, আওয়ামী লীগের শত্রু হবেন না। নেতা-কর্মীদের মূল্যায়ন করবেন। কর্মীরাই এক-এগারোর সময় নেত্রীকে আলোর পথ দেখিয়েছে। বসন্তের কোকিল দিয়ে কমিটি গঠন করবেন না।’

২০১৯ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে, তা এখনো ঠিক হয়নি জানিয়ে কাদের বলেন, ‘আমিও যে মনোনয়ন পাব, এটা নিশ্চিত করে বলতে পারি না। নেত্রী মাঠপর্যায়ে খোঁজ নিচ্ছেন। তিন মাস পরপর মাঠপর্যায়ে নেতা-কর্মীদের তথ্য নিচ্ছেন। তাই এখন ব্যক্তির জন্য কাজ করবেন না, নৌকার জন্য কাজ করবেন।’

সার্চ কমিটিতে আওয়ামী লীগের নাম দেওয়া প্রসঙ্গে কাদের বলেন, ‘আজ সকালে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া পাঁচজনের নাম দপ্তর সম্পাদকের মাধ্যমে সার্চ কমিটিতে পাঠিয়েছি। রাষ্ট্রপতি ইচ্ছা করলে এর মধ্য থেকে দিতেও পারেন, না-ও দিতে পারেন। রাষ্ট্রপতির ওপর আমাদের অগাধ আস্থা আছে। তিনি যা করবেন, আওয়ামী লীগ সেটা মেনে নেবে।’

বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোজাম্মেল হোসেনের সভাপতিত্বে প্রতিনিধি সভায় আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীম, বাগেরহাট-১ আসনের সাংসদ শেখ হেলাল উদ্দিন, বাগেরহাট-২ আসনের সাংসদ মীর শওকত আলী বাদশা, বাগেরহাট-৩ আসনের সাংসদ তালুকদার আবদুল খালেক, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান প্রমুখ।

কম খরচে মেদ কমানোর ৫ খাবার

শরীরের মেদ ঝরাতে চান? হাতের নাগালেই এমন কয়েকটি খাবার আছে, যা আপনার মেদ ঝরিয়ে ঝরঝরে হতে সাহায্য করতে পারে। জেনে নিন এসব খাবার কী:

ফুলকপিফুলকপি: ফুলকপি খেলে অম্লতার সমস্যা হয় বলে অনেকে এই সবজি এড়িয়ে যান। কিন্তু যাঁদের ফুলকপি সয়, তাঁরা ওজন কমাতে এই সবজি নিয়মিত খেতে পারেন। এক কাপ ফুলকপিতে দুই গ্রাম আঁশ ও ২৭ ক্যালরি থাকে। এতে থাকে ভিটামিন সি, যা আপনার বিপাকীয় প্রক্রিয়া উন্নত করে।

আরও পড়ুন: ফুলকপির ১০ গুণ

দারুচিনিদারুচিনি: পলিফেনলসসমৃদ্ধ এই মসলা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে। সুইডেনের গবেষকেদের এক গবেষণায় দেখা গেছে, খাবারে দারুচিনি যুক্ত করলে তৃপ্তি বাড়ে। সঠিক পরিমাণে মসলা যুক্ত করলে ক্ষুধা ব্যবস্থাপনা ঠিকমতো করা যায়, যা ওজন নিয়ন্ত্রণে ভূমিকা রাখে। এই মসলার উপকার পেতে তেলযুক্ত খাবার এড়াতে হবে।

আরও পড়ুন: শীতে যা অবশ্যই পান করবেন

মটরশুঁটিমটরশুঁটি : সবুজ মটরশুঁটিতে ডায়েটারি ফাইবার, প্রোটিন ও ভিটামিন আছে, যা ওজন কমাতে সাহায্য করে। এক কাপ রান্না করা মটরশুঁটিতে ৬৭ ক্যালরি থাকে। এটি নাশতা হিসেবে খাওয়া যেতে পারে। এ ছাড়া উচ্চ ক্যালরিযুক্ত খাবারে বা উচ্চ শর্করার সঙ্গে মিশিয়ে এটি খেলে মূল ক্যালরি কমে।

আরও পড়ুন: সবুজ মটরশুঁটির চমক

পেয়ারাপেয়ারা: প্রতি কাপ পেয়ারায় ১১২ ক্যালরি থাকে, যা নাশতায় খাওয়া যেতে পারে। এক কাপ পেয়ারা খেলে প্রতিদিন যে পরিমাণ আঁশ দরকার, এর ২০ শতাংশ পূরণ হয়। আঁশ ছাড়াও এতে প্রচুর পানি থাকে, যা পেট ভরা রাখে এবং প্রাকৃতিক উপায়ে চিনি কমায়। বাড়তি হিসেবে ভিটামিন সি তো আছেই।
আরও পড়ুন: পেয়ারা খেলে যে লাভ

লাল মরিচলাল মরিচ: লাল মরিচে আছে ক্যাপসিসিন, যা চর্বি কমানোর হার বাড়ায় এবং ওজন কমাতে সাহায্য করে। পুষ্টিবিদেরা বলেন, ক্যাপসিসিন তাপ উৎপাদনের মাধ্যমে বিপাকীয় সক্রিয়তা বাড়ায়। আমেরিকান জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশনে বলা হচ্ছে, প্রতিদিন ৬ মিলিগ্রাম ক্যাপসিসিন খেলে নারী-পুরুষের উভয়ের ক্ষেত্রেই পেটের চর্বি কমানোর হার বাড়ে।