হিমুর হাতে এক খাঁচি ডিম

অক্টোবর ১৬, ২০১৭ ৮:০৮ পূর্বাহ্ণ

ওসি সাহেব আমার দিকে ঝুঁকে নিচু গলায় ডাকলেন, ‘হিমু।’
: জি, বলুন।
: বাটু সামাদের সঙ্গে আপনার লেনদেন কী?
: আগুনের লেনদেন।
: মানে?
: মানে হচ্ছে, রাত দুইটা বাজে সিগারেট খেতে গিয়ে দেখি ম্যাচ বাক্সে কাঠি নাই। কাঠি জোগাড় করতে গেলাম বাবুল কাকার দোকানে। কিন্তু কাকার দোকানও খোলা পেলাম না। ফেরার পথে দেখা হলো আপনাদের বঁাটু সামাদের সঙ্গে, তার হাতে জ্বলন্ত সিগারেট। তার কাছ থেকে আগুন ধার নিয়ে সিগারেট ধরাচ্ছি, এমন সময় হঠাৎ করে চারপাশ থেকে পুলিশ এসে ঘিরে ধরল।
: তার মানে বলতে চাইছেন বঁাটু সামাদের সঙ্গে আপনার কোনো সম্পর্ক নেই!
: অবশ্যই আছে। ওই যে বললাম, আগুনের সম্পর্ক। এই সম্পর্ক আত্মার সম্পর্কের চেয়েও কঠিন জিনিস।
ওসি সাহেব এবার রেগে গিয়ে বললেন, ‘তার চেয়েও কঠিন জিনিস হচ্ছিস তুই। ওয়েট কর, বঁাটু সামাদের পরই তোর ব্যবস্থা করা হবে।’
এই পর্যায়ে আমি খানিকটা শঙ্কিত বোধ করছি। ওসি সাহেব আপনি থেকে তুইয়ে নেমে গেছেন, তার মানে পানি বিপৎসীমার তিন সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে। যেকোনো সময় যেকোনো কিছু ঘটতে পারে। বঁাটু সামাদ বিভিন্ন র্যা ঙ্কিংয়ের শীর্ষ সন্ত্রাসী। খাঁটি অলরাউন্ডার। এই বঁাটু সামাদের সঙ্গে আমাকেও রাত আড়াইটায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সুতরাং এবার অবস্থা বেশ ভয়াবহ।
ধারাভাষ্যকারের ভাষায়, খেলায় এখন টান টান উত্তেজনা।
ওসি সাহেব গলা উঁচিয়ে ডাকলেন, ‘রফিক, এই রফিক।’
টিংটিংয়ে শুকনা, তালপাতার সেপাই গোছের একজন কনস্টেবল ছুটে এসে বলল, ‘ইয়েস, স্যার।’
ওসি সাহেব বললেন, ‘সেদ্ধ ডিম রেডি করো। দুইটারে ডিম থেরাপি দিতে হবে।’
কনস্টেবল একটু ভয় পাওয়া গলায় বলল, ‘ইয়ে স্যার, একটা মিসটেক হইয়া গেছে। স্টকের ডিম শ্যাষ। সকাল ছাড়া ডিম পাওয়া যাইব না।’
ওসি সাহেব হতাশ হয়ে চেয়ারে হেলান দিলেন।
আমি ওসি সাহেবের দিকে তাকিয়ে মাই ডিয়ার টাইপের হাসি দিলাম।
খেলায় এখনো টান টান উত্তেজনা।

২.
সকাল আটটা। টান টান উত্তেজনার খেলার পরিণতি হিসেবে আমি এখন দাঁড়িয়ে আছি খামারবাড়ির কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটের সামনে। আজ ডিম দিবস। এই উপলক্ষে এখানে প্রতি পিস ডিম তিন টাকায় বিক্রি করা হবে। থানা থেকে আমাকে পাঠানো হয়েছে ডিম কেনার জন্য। ডিম কেনার পর সেই ডিম দিয়েই বঁাটু সামাদ ও আমাকে ডিম থেরাপি দেওয়া হবে।
ইনস্টিটিউটের সামনে বিরাট লাইন। বালতি, ডিমের খাঁচি আর কার্টন হাতে নিয়ে হাজার হাজার নারী-পুরুষ ডিম কিনতে এসেছেন। চারদিকে বেশ একটা উৎসবমুখর পরিবেশ।
আমি দাঁড়িয়ে আছি লাইনের মাঝামাঝি। ডিম বিতরণের জন্য লাইনের একেবারে সামনে একটা অস্থায়ী মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে। সেই মঞ্চের অবস্থা সুবিধার নয়। বাঁশ দিয়ে কোনো রকমে একটা প্যান্ডেল দাঁড় করানো হয়েছে। দেখেই মনে হচ্ছে তাসের ঘর, এক্ষুনি হুড়মুড় করে ভেঙে পড়বে।
‘হিমু ভাই! ও হিমু ভাই!’
ডাক শুনে তাকিয়ে দেখি পাশের লাইনে রিংকু দাঁড়িয়ে আছে। রিংকু আমার প্রাক্তন মেসের রুমমেট। কোনো এক বিচিত্র কারণে আমাকে সে মোটামুটি মহামানব মনে করে। এই কারণে কিছুদিন আগে অন্য মেসে গিয়ে উঠেছি।
রিংকু আমাকে দেখে বিস্মিত গলায় বলল, ‘ভাই, আপনিও তিন টাকায় ডিম কিনতে আসছেন! দেশের অবস্থা দেখি আসলেই ভয়াবহ!’
আমি হাসিমুখে বললাম, ‘তার চেয়েও ভয়াবহ হচ্ছে ডিমের প্রতি আমাদের উন্মত্ত প্রেম। এই প্রেম দেখি অতীতের সব প্রেমের রেকর্ড ভঙ্গ করে ফেলছে!’
রিংকু তার লাইন ছেড়ে আমার কাছে এসে বলল, ‘প্রেম-টেম কিছু না, হিমু ভাই। শাকসবজির যে দাম বাড়ছে, মানুষের হাতে ডিম ছাড়া আর কোনো অপশন নাই। আর ব্যাচেলরদের কাছে তো ডিম হচ্ছে জাতীয় খাদ্য। না হলে ব্যাচেলর সমাজ সেই কবেই ডাইনোসরের মতো বিলুপ্ত হয়ে যেত!’
রিংকুর কথা শেষ না হতেই লাইনে দাঁড়ানো মানুষজন হইচই শুরু করল। ডিম বিক্রি শুরু হয়ে গেছে।
রিংকু আমার কানের কাছে মুখ নিয়ে বলল, ‘হিমু ভাই, আমি ৪০ জন মেস মেম্বার নিয়ে আসছি। আপনার রোদের মধ্যে লাইনে দাঁড়ানোর দরকার নাই। আপনার যত ডিম লাগে, আমি ম্যানেজ করে দেব।’
রিংকুর কথার জবাব দেওয়ার আগেই পেছন থেকে ধাক্কা খেয়ে সামনের জনের ওপর পড়ে গেলাম। ডিম দেওয়া শুরু না হতেই শুরু হয়ে গেছে প্রবল ধাক্কাধাক্কি, হই-হট্টগোল।
আমি আস্তে করে সাইডে চলে এলাম। ততক্ষণে তাসের ঘর, মানে অস্থায়ী মঞ্চ মানুষের হুড়াহুড়িতে ভেঙে পড়েছে। সঙ্গে বেশ কয়েক খাঁচি ডিমও ভেঙে গেছে। ডিম-মানুষে মাখামাখি।
পুলিশ অ্যাকশনে চলে এসেছে। আশা করি কিছুক্ষণের মধ্যেই পরিস্থিতি শান্ত হয়ে যাবে।
এত ভিড়ের মধ্যেও রিংকু আমাকে ঠিকই খুঁজে বের করল। সে অসাধ্য সাধন করেছে। কারণ, তার হাতে এক খাঁচি ডিম!
সেই ডিমের খাঁচি আমার হাতে তুলে দিয়ে বলল, ‘হিমু ভাই, আপনি এইটা ধরেন।’
এই বলে সে আবার ভিড়ের মধ্যে হারিয়ে গেল।
আমি ডিমের খাঁচি নিয়ে থানার উদ্দেশে রওনা দিলাম। লোকজন আমার দিকে ঈর্ষার চোখে তাকাচ্ছে। অনেক আশা নিয়েই সবাই এসেছিল, কিন্তু বেশির ভাগের কপালেই তিন টাকা পিস ডিম জোটেনি।
স্বপ্ন ও ডিমভঙ্গের যন্ত্রণা একই রকম ভয়াবহ।

(জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের হিমু চরিত্র অবলম্বনে)

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1121 বার
 
 
 
 
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও তারেক রহমান
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 
 

পূর্বের সংবাদ

 
 

অনন্য অনলাইন পত্রিকা

 
 
 

 
Plugin by:aAM
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com