স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ শেষে রক্ত দিয়ে নাম লিখে যায় ঘাতক!

ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১৮ ১:৫৯ অপরাহ্ণ

নারায়ণগঞ্জ ফতুল্লার কাশিপুরে ৬ষ্ঠ শ্রেণির স্কুলছাত্রী মোনালিসা আক্তারের (১২) লাশ উদ্ধারের ঘটনায় হত্যা মামলা হয়েছে। এতে একজন প্রবাসীকে আসামি করা হয়েছে। যার বিরুদ্ধে মোনালিসাকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ আনা হয়েছে। ঘটনার পর বাড়ির পাশের দেয়ালে মোনালিসার রক্ত দিয়ে নামও লিখে দিয়ে যায় ওই আসামি। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত ওই প্রবাসী পলাতক রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। আজ বিকেলে ফতুল্লা মডেল থানায় মোনালিসার বাবা শাহীন বেপারী বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

এর আগে শুক্রবার রাতে ফতুল্লার কাশিপুর ইউনিয়নের পশ্চিম দেওভোগ বাংলা বাজার বড় আমবাগান এলাকার শাহীন বেপারীর ঘর থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় মোনালিসার লাশটি উদ্ধার করা হয়। সে স্থানীয় হাজী উজির আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী। মামলায় শাহীন বেপারী অভিযোগ করেন, শুক্রবার বিকেলে তিনি ও তার স্ত্রী বাড়িতে ছিল না। বাড়িতে সেদিন মোনালিসা ও শাহেদ হাসান (৯) নামে ছোট আরেক ছেলে ছিল। ছেলে শাহেদ খেলার জন্য বাড়ির বাইরে গেলে এ সুযোগে সাইদ শাহীন বেপারীর ঘরে প্রবেশ করেছিল জানিয়েছে প্রত্যক্ষদর্শীরা। সাইদ ঘর থেকে বের হয়ে যাওয়ার সময়ে ভাড়াটিয়া রবতন বেগম জিজ্ঞাসা করলে তাকে হুমকি দিয়ে চলে যায় এবং মাঠে খেলার সময় ছেলে শাহেদকে বলে তোমার বোন তোমাকে ডাকছে বাসায় যাও। পরে শাহেদ বাসায় এসে ঘরের দরজা খুলে রবতন বেগমসহ আশপাশের লোকজনকে নিয়ে ফ্যানে বাধা গামছা কেটে মোনালিসাকে নামিয়ে শহরের ১০০ শয্যা বিশিষ্ট নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক মোনালিসাকে মৃত ঘোষণা করেন। মামলায় সাইদই মোনালিসাকে হত্যার পর লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে দেয় অভিযোগ করা হয়।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি কামাল উদ্দিন জানান, মোনালিসাকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে প্রাথমিক তদন্তে প্রমাণ পাওয়া গেছে। ঘাতক মোনালিসার রক্ত দিয়ে পাশের বাড়ির একটি দেয়ালে তার নাম লিখে গেছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। মামলায় শাহীন বেপারীর প্রতিবেশী পাশের বাড়ির ইকবাল হোসেনের ছেলে সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসী সাইদ মিয়াকে (৩০) আসামী করা হয়েছে। সাইদ ঘটনার পর তার স্ত্রী ইভাকে (২৫) একই এলাকায় শ্বশুর বাড়িতে রেখে আত্মগোপন করে। সাইদকে গ্রেফতারের জন্য চেষ্টা চলছে।
হাজী উজির আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হুমায়ন কবীর রতন জানান, মোনালিসা অত্যন্ত মেধাবী ছাত্রী ছিল। তার এই মৃত্যু আমরা মেনে নিতে পারিনা। হত্যাকারীকে দ্রুত গ্রেফতার ও ন্যায় বিচার চাই।

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1029 বার
 
 
 
 
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও তারেক রহমান
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 
 

পূর্বের সংবাদ

 
 

অনন্য অনলাইন পত্রিকা

 
 
 

 
Plugin by:aAM
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com