রবিবার ১লা অক্টোবর পবিত্র আশুরা ও এর ফজিলত

সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৭ ৩:৪৮ অপরাহ্ণ

:: রবিবার ১লা অক্টোবর পবিত্র আশুরা।

“একদা রাসুলুল্লাহ (সাঃ) ইয়াহুদীদের কতিপয় এমন লোকের পাশ দিয়ে অতিক্রম করেন, যারা আশুরার দিনে রোযা রেখেছিল। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) তাদেরকে জিজ্ঞেস করলেন “এটা কিসের রোযা?”
উত্তরে তারা বলল, “এই দিনে আল্লাহ তা‘আলা হযরত মূসা (আঃ) ও বনী ইসরাঈলকে ডুবে যাওয়া থেকে উদ্ধার করেছিলেন। (অন্য বর্ণনায় আছে ফিরআউনের নির্যাতন থেকে মুক্ত করেছিলেন) এবং ফিরআউনকে দল-বল সহ নিমজ্জিত করেছিলেন। আর এই দিনেই হযরত নূহ (আঃ)- এর নৌকা জূদী পর্বতে স্হির হয়েছিল। ফলে এই দিনে হযরত নূহ (আঃ) ও হযরত মূসা (আঃ) কৃতজ্ঞতাস্বরূপ রোযা রেখেছিলেন। তাই আমরাও এই দিনে রোযা রাখি।”
তখন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, “মূসা (আঃ)-এর অনুসরণের ব্যাপারে এবং এই দিনে রোযা রাখার ব্যাপারে আমি তোমাদের চেয়ে বেশী হ্কদার।”
অতঃপর রাসুলুল্লাহ (সাঃ) সেদিন (আশুরার দিন) রোযা রাখেন এবং সাহাবাদেরকেও রোযা রাখতে আদেশ করেন।”
-(বুখারী-২০০৪, মুসলিম-১১৩০)

“তোমরা আশুরার দিনে রোযা রাখ। তবে এ ক্ষেত্রে ইয়াহুদীদের থেকে ভিন্নতা অবলম্বন করতঃ তোমরা আশুরার পূর্বে অথবা পরের একদিন সহ রোযা রাখবে।”
-(মুসনাদে আহমাদ-২৪১)

“আমি আশাবাদী যে, আশুরার দিনের রোযার উসীলায় আল্লাহ তা‘আলা অতীতের এক বৎসরের গুনাহ মাফ করে দিবেন।”
-(তিরমিযী-৭৫১)

“রমাযানের রোযার পর মুহাররম মাসের রোযা সর্বোত্তম।”
-(মুসলিম-১১৬৩)

“মুহাররম হলো আল্লাহ তা‘আলার (নিকট একটি মর্যাদাবান) মাস। এই মাসে এমন একটি দিন আছে, যাতে তিনি অতীতে একটি সম্প্রদায়কে ক্ষমা করেছেন এবং ভবিষ্যতেও অপরাপর সম্প্রদায়কে ক্ষমা করবেন।”
-(তিরমিযী-৭৪১)

সূত্র : ডক্টর তুহিন মালিকের ফেসবুক ।

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1124 বার
 
 
 
 
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও তারেক রহমান
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 
 

পূর্বের সংবাদ

 
 

অনন্য অনলাইন পত্রিকা

 
 
 

 
Plugin by:aAM
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com