যেসব কারণে শেখ হাসিনা সরকারের সাংবিধানিক আইনগত ও নৈতিক ভিত্তি নেই

জানুয়ারি ৫, ২০১৮ ৯:৪৭ অপরাহ্ণ

বিশেষ রিপোর্ট : ৫ জানুয়ারী ২০১৮। দ্বিতীয় মেয়াদে শেখ হাসিনার অবৈধ ও অসাংবিধানিক সরকারের সরকারের চার বছর পার হয়েছে। তথ্য প্রমান এবং বাস্তবতায় দেখা যায় এই সরকারের সাংবিধানিক, আইনগত কিংবা নৈতিক ভিত্তি নেই, কোনোভাবেই এই সরকারের বৈধতা নেই এবং এই সরকারের কোনো কার্যক্রমই বৈধ নয়।

দেশের বর্তমান সংবিধানের ৬৫(২) অনুচ্ছেদে একক আঞ্চলিক নির্বাচনী এলাকাগুলো থেকে প্রত্যক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে সরাসরি সংসদ সদস্য নির্বাচনের কথা বলা হয়েছে, সিলেকশন নয়। অপরদিকে ১২২(১) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘প্রাপ্ত বয়স্কের ভোটাধিকার-ভিত্তিতে সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে।

কিন্তু ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী প্রহসনের নির্বাচনের আগেই তৎকালীন প্রধান নির্বাচন কমিশনার জাতীয় অপদার্থ কাজী রকিব ১৫৪ কে সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত ঘোষণা দেন। নির্বাচনের আগেই সরকার গঠন করার মতো ১৫৪ জনকে এমপি ঘোষণা করা হয়েছে যাদের কাউকেই জনগণ পক্ষে কিংবা বিপক্ষে ভোট দেয়ার সুযোগ পায়নি। এটা স্পষ্টতই সংবিধানের ৬৫(২) এবং ১২২(১) অনুচ্ছেদের লঙ্ঘন। সুতরাং এই সরকার অসাংবিধানিক।
এই সরকার আইনগতভাবেও অবৈধ ও অকার্যকর। সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ সর্বসম্মতিক্রমে ২০১৭ সালের ৩ জুলাই সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিল বলে রায় দিয়েছে। রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা হয়েছে, বর্তমান সরকার ‘অকার্যকর’ এবং সংসদ ‘অপরিপক্ক’। দেশের সর্বোচ্চ আদালতের রায়ে স্পষ্ট, বর্তমান সরকার আইনগতভাবেও অবৈধ।

২০১৭ সালের ২৪ ডিসেম্বর শিক্ষা ভবনের পরিদর্শন ও নিরীক্ষণ অধিদপ্তরে ডিজিটাল মনিটরিং ব্যবস্থার উপর এক প্রশিক্ষণের সমাপনী অনুষ্ঠানে বর্তমান ব্যাংক ডাকাত সরকারের শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ প্রকাশ্যেই স্বীকার করে বলেছেন এই সরকারের সব মন্ত্রীরা চোর এবং তিনি নিজেও চোর। অপরদিকে ব্যাংক ডাকাত সরকারের অর্থমন্ত্রী ডক্টর আবুল মাল আব্দুল মুহিত ২০১৬ সালের ৮ জুন চোরাই সংসদে দাঁড়িয়ে বলেছেন এই সরকারের আমলে কেবল ‘পুকুর চুরি’ নয় ‘সাগর চুরি’ হয়েছে। এ কথায় প্রমাণিত এই সরকারের নৈতিক ভিত্তিও নেই।

সকল তথ্য প্রমান এবং বাস্তবতা হলো, শেখ হাসিনার বর্তমান সরকারের সাংবিধানিক, আইনগত কিংবা নৈতিক ভিত্তি নেই। এই সরকার অবৈধ, অসাংবিধানিক ও অগণতান্ত্রিক।এই সরকার নিজেদের অবৈধ ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখতে একদিকে প্রতিবাদী মানুষকে গুম খুন অপহরণ করছে অপরদিকে দেশের সরকারি বেসরকারি ব্যাংক থেকে লুটে নিয়ে বিদেশে পাচার করে দিচ্ছে শতশত কোটি টাকা। ব্যাংকে আমানত জামানত রেখেও এই সরকারের হাতে জনগণের অর্থ সম্পদ নিরাপদ নয়। এই সরকার ব্যাংক ডাকাত সরকার।

সুত্র : ডেইলি বিডি টাইমস ।

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1226 বার
 
 
 
 
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও তারেক রহমান
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 
 

পূর্বের সংবাদ

 
 

অনন্য অনলাইন পত্রিকা

 
 
 

 
Plugin by:aAM
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com