বাংলাদেশ দলে ছয় স্পিনার শুনে হাসলেন হাথুরু

জানুয়ারি ৩০, ২০১৮ ১২:৪১ অপরাহ্ণ

ঘটনা-১:
খেলোয়াড়ি জীবনে খালেদ মাহমুদ ছিলেন পেস বোলিং-অলরাউন্ডার। দলের প্রয়োজনে তিনি আজ স্পিনার হয়ে গেলেন! আবদুর রাজ্জাক, তাইজুল ইসলাম, নাঈম হাসান আর মোসাদ্দেক হোসেনকে নিয়ে নেটে কাজ করছিলেন বাংলাদেশের স্পিন বোলিং কোচ সুনীল যোশি। কিন্তু স্পিনারদের হাত মকশোটা ঠিক মনমতো হচ্ছিল না মাহমুদের। বাংলাদেশ দলের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর নিজেই হাত ঘুরিয়ে দেখিয়ে দিলেন, স্পিন কীভাবে করতে হয়!

ঘটনা-২:
সংবাদ সম্মেলনে আসার পথে দিনেশ চান্ডিমালকে নিয়ে আচ্ছাদন উঁচিয়ে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে উইকেট দেখলেন চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। অনুশীলনের মাঝে আরেকবার দেখলেন। তাতেও হলো না। অনুশীলন শেষে টিম ম্যানেজমেন্ট, অধিনায়ক—সবাইকে নিয়ে আবারও এলেন উইকেটে। কিউরেটর জাহিদ রেজাকে দিয়ে আচ্ছাদন পুরোটাই সরালেন। উইকেটের মাঝে গিয়ে হাথুরু উইকেট দেখলেন আরও ভালোভাবে।

কেমন উইকেট দেখলেন হাথুরু? প্রথমে যে ঘটনাটা বলা হলো, উত্তরটা লুকিয়ে সেখানেই। চট্টগ্রামের উইকেট যে পুরোপুরি স্পিন-সহায়ক হতে যাচ্ছে, সেটি অজানা নয়। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশ প্রস্তুতি নিয়েছে সেভাবেই। দলের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ সংবাদ সম্মেলনে যেমন বললেন, ‘দলে ছয় স্পিনার থাকা মানে আপনারাও হয়তো অনুমান করতে পারছেন কী হতে যাচ্ছে। উইকেট সম্ভবত স্পিন-সহায়ক হতে পারে। আমরা আমাদের দেশের মাঠে স্পিনারদের ওপর নির্ভর করি। আমাদের এ বিভাগটা বেশ ভালো, শক্তিশালী। সাকিব (আল হাসান) নেই, আমরা সেটা সামলে নেওয়ার চেষ্টা করব।’ শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক দিনেশ চান্ডিমাল বিশদ ব্যাখ্যায় না গিয়ে সরাসরি বললেন, ‘অবশ্যই ঘূর্ণি উইকেট হতে যাচ্ছে।’

আবদুর রাজ্জাক, তাইজুল ইসলাম, মেহেদী হাসান মিরাজ, সানজামুল ইসলাম, তানভীর হায়দার ও নাঈম হাসান—উপমহাদেশের একটা দলের বিপক্ষে বাংলাদেশ স্কোয়াডে ছয় বিশেষজ্ঞ স্পিনার! বিষয়টি কীভাবে দেখছেন, প্রশ্নটা চান্ডিমালকে যখন করা হলো পাশ থেকে মিটিমিটি হাসলেন চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। শ্রীলঙ্কান কোচ হয়তো ভাবছিলেন, ‘আমার কৌশল আমার বিপক্ষেই খাটানো হচ্ছে!’
হাথুরুর পরিকল্পনা অনুযায়ী স্পিন-সহায়ক উইকেটে ২০১৬ সালে ইংল্যান্ড ও ২০১৭ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জিতেছিল বাংলাদেশ। এখন তাঁর বিপক্ষেই একই ছক কষছে বাংলাদেশ! শ্রীলঙ্কান ব্যাটসম্যানরা যে স্পিনে দুর্বল বা তাদের স্পিন বোলিং খুব একটা শক্তিশালী নয়, সেটি নিশ্চয়ই নয়। যে দলে রঙ্গনা হেরাথ-দিলরুয়ান পেরেরা আছেন, তাঁদেরই স্পিন-চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিচ্ছে বাংলাদেশ। হাথুরু অবশ্য এতে মোটেও অবাক নন, ‘আমি অবাক নই। তারা এই কৌশলে সফল হয়েছে। নিজেদের শক্তিতেই সম্ভবত তারা অনড় থাকতে চাচ্ছে। আমরাও চ্যালেঞ্জটা নিচ্ছি।’

কী দাঁড়াল? লড়াইটা এবার স্পিনারদের! কিন্তু বাংলাদেশ দলের ছয় বিশেষজ্ঞ স্পিনারের কজন কাল খেলবে—সেটি নিয়ে তৈরি হয়েছে ধাঁধা। দলীয় সূত্র বলছে, তিনজনকে দেখা যেতে পারে একাদশে। এই টেস্টে অভিষেক হয়ে যেতে পারে লেগ স্পিনার তানভীর হায়দারের। অফ স্পিনার হিসেবে থাকছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। প্রতিপক্ষের ব্যাটিং অর্ডার ভাবনায় রেখে তিন বাঁহাতি স্পিনারের মধ্যে সুযোগ পাবেন একজন। সেই একজন যে হঠাৎ ডাক পাওয়া আবদুর রাজ্জাক নন, সেটি মোটামুটি নিশ্চিত। তাইজুল ইসলাম-সানজামুল ইসলামের মধ্যে কে একাদশে জায়গা পাচ্ছেন আজ বিকেলে সেটি পরিষ্কার না হওয়া গেলেও এটা নিশ্চিত বাংলাদেশ এক পেসার নিয়ে নামছে। স্পিন-সহায়ক উইকেটে দুই পেসার নিয়ে খেলাটা বাংলাদেশ দলের কাছে এখন বাড়াবাড়ি!
ড্র নয়, চট্টগ্রাম টেস্টে ফল চায় বাংলাদেশ। ম্যাচ যদি তিন দিনেও শেষ হয় তাতেও আপত্তি নেই মাহমুদউল্লাহদের। বাংলাদেশ দলের কোচ যখন ছিলেন, হাথুরুও এটাই চাইতেন! ছয় স্পিনারের কথা শুনে শ্রীলঙ্কান কোচ হাসছেন, সেটি আর অস্বাভাবিক কী!

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1129 বার
 
 
 
 
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও তারেক রহমান
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 
 

পূর্বের সংবাদ

 
 

অনন্য অনলাইন পত্রিকা

 
 
 

 
Plugin by:aAM
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com