পুকুর সেচবেন আপনি, আর কই খাবে ঐ ‘সুবোধ’

নভেম্বর ৪, ২০১৭ ১২:১১ অপরাহ্ণ

:: সুবোধের হাতে প্রথম আলোর লোগোটাই তার সম্পর্কে ধারণা পাবার জন্য যথেষ্ট ছিল। ডেইলি স্টার, যারা নিজেরাই স্যাটায়ার বোঝে না, তাদের মাধ্যমে সুবোধকে গ্রেফতার নিয়ে স্যাটায়ার লিখে আলোচনায় ফিরিয়ে আনা এবং ভারতের কলিকাতা২৪ নিউজ পোর্টাল দিয়ে সেটাকে ভাইরাল করার ফলে সুবোধের বংশ পরিচয় আরেকটু পরিষ্কার হলো। মাঝখান থেকে যুগান্তর না বুঝে বিশেষ প্রানীর তিন নম্বর বাচ্চার মত রোল প্লে করলো!

বাংলার মাটিতে সন্যাসী বিদ্রোহ থেকে শুরু করে, ফকির বিদ্রোহ, সাঁওতাল বিদ্রোহ, বৃটিশ বিরোধী অন্যান্য আন্দোলন, ভাষা আন্দোলন, ৬৯ এর গণ অভ্যুত্থান, ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধ, ৯০ এর স্বৈরাচার পতন আন্দোলনগুলো সংঘঠিত হয়েছিল কিছু রগচটা তেজি মানুষের দ্বারা; শান্তিনিকেতনী কায়দায় কথা বলা প্রথম আলো ব্রান্ডের আরবান মিডল ক্লাস ‘সুবোধ’দের সেখানে কোন ভুমিকা ছিল না।

অবশ্য প্রতিটি আন্দোলনের ফসল আন্দোলনকারীদের হাত থেকে ছিনিয়ে নিয়ে নিজেরা খাওয়ার ক্ষেত্রে ‘সুবোধ’দের রয়েছে একচেটিয়া আধিপত্য। ৫২’র ভাষা আন্দোলনে গ্রাম থেকে আসা সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার নিহত হবার মাধ্যমে ভাষার অধিকার পাবার পর শহীদদের পরিবার কিছু না পেলেও একুশে ফেব্রুয়ারী নিয়ে পাছা ঢুলিয়ে ঢুলিয়ে গান গাওয়া ‘সুবোধ’রা হয়ে গেছে বাঙালী সংষ্কৃতির একমাত্র ঠিকাদার। তাদের ঠিকাদারিতে বাংলাদেশের মাটির মানুষের ভাষা নেই, আমদানী হয়েছে শান্তিনিকেতনী ভাষা!

মুক্তিযুদ্ধেও একই অবস্থা! অধিকাংশ মুক্তিযোদ্ধা ছিল বিভিন্ন বাহিনীতে কর্মরত গ্রামের পোলা, নয়তো সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেয়া গ্রাম থেকে আসা কৃষক, শ্রমিক, মজুর। রুমি-আজাদের মত আরবান মিডলক্লাস সুবোধের সংখ্যা সেখানে খুবই কম। কিন্তু যুদ্ধ শেষে যুদ্ধের ফসল গেল সুবোধদের ঘরে, তাও যারা কখনো মুক্তিযুদ্ধেই অংশগ্রহণ করেনি। সেই সুবোধরাই এখন মুক্তিযুদ্ধের একচেটিয়া ঠিকাদার। গ্রাম থেকে উঠে আসা ‘বীরশ্রেষ্ট’দের পরিবার না খেয়ে দিন মজুরি করে, আর এই সুবোধদের পরিবার ঢাকা শহরে শতকোটি টাকার বিহারী বাড়ী, বিহারী ব্যবসা দখল করে আরাম আয়েশ করতে করতে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা শেখায়, রনাঙ্গণে নেতৃত্ব দেয়া বীর মুক্তিযোদ্ধাকে ‘রাজাকার’ বানায় আর ৭১’এর রাজাকারকে বানায় ‘মুক্তিযোদ্ধা’!

কাজেই বর্তমান ভোট ডাকাত স্বৈরাচার থেকে মুক্তির ক্ষেত্রে ঐ শান্তিনিকেতনী রোমান্টিক বিপ্লবী, আরবান মিডলক্লাস ‘সুবোধ’ থেকে সাবধান! পুলিশ ওকে ধরবে না, আলো-স্টার গ্রুপ ওকে আলোচনায় রাখতে চাইবে। কিন্তু আপনারা কেউ যদি ওকে ধরতে পারেন, তাহলে কষে দুইটা চটকানা দিতে ভুলবেন না যেন। তা নাহলে আবারো পুকুর সেচবেন আপনি, আর কই খাবে ঐ ‘সুবোধ’।

লেখক : একেএম ওয়াহিদুজ্জামান, শিক্ষক-বিএনপির পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক সম্পাদক ।

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1119 বার
 
 
 
 
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও তারেক রহমান
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 
 

পূর্বের সংবাদ

 
 

অনন্য অনলাইন পত্রিকা

 
 
 

 
Plugin by:aAM
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com