পলায়ন অব্যহত: এবার সপরিবারে পালালেন ব্যাংক ডাকাত মখা আলমগীর

ডিসেম্বর ৭, ২০১৭ ৮:৩৫ অপরাহ্ণ

:: দুর্নীতির দায়ে ফারমার্স ব্যাংকের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করার পরে এবার সপরিবারে পালালেন মখা আলমগীর।

কচুয়ার আওয়ামীলীগ সূত্র জানিয়েছে, গত সপ্তাহে ফারমার্স ব্যাংক ছাড়ার পরে সহসা সরকার পরিবর্তন হলে জেলে যাওয়া লাগতে পারে ধারণা করে স্ত্রী ও পুত্রকে নিয়ে দু’দিন আগে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমালেন সাবেক এই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর।

উল্লেখ্য, আওয়ামীলীগের সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর নিজের গড়া ফার্মার্স ব্যাংক লুটপাট করে ধংস করে ফেলেছে। ব্যাংকটির মূলধন পর্যন্ত খেয়ে ফেলেছে। গত এক বছর ধরে ব্যাংকটিতে তারল্য সংকট চলছে। পরিস্থিতি এখন এ পর্যায়ে গেছে যে, আমানতকারীর দায় পরিশোধের সক্ষমতা নেই ব্যাংকটির। অর্থ সংকটের কারণে কলমানি ও আন্তঃব্যাংক থেকে ধার করে চলতে হচ্ছে। গত এপ্রিল থেকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে টানা নগদ জমা (সিআরআর) সংরক্ষণে ব্যর্থ হচ্ছে। নগদ জমা সংরক্ষণে ব্যর্থতার কারণে গত বছরের অক্টোবর থেকে ব্যাংকটিকে ১৮ কোটি ৪৯ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অনিয়ম ঠেকাতে গত বছরের জানুয়ারি থেকে ব্যাংকটির শাখা সম্প্রসারণ ও ঋণ বিতরণে নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা হয়।

এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, বর্তমানে ব্যাংকটির গ্রাহক আমানত রয়েছে পাঁচ হাজার ১২৫ কোটি টাকা। আন্তঃব্যাংক আমানত রয়েছে ৫৩৫ কোটি এবং কলমানি থেকে ধারের পরিমাণ ১৪৫ কোটি টাকা। গত জুনে ব্যাংকটির ৩০৬ কোটি টাকা খেলাপিতে পরিণত হয়েছে, যা মোট ঋণের ৬ দশমিক ৩৫ শতাংশ। খেলাপি ঋণের এ হার নতুন ব্যাংকগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ। ঋণের সদ্ব্যবহার নিশ্চিত না করে উদ্দেশ্যবহির্ভূতভাবে ঋণ, অস্তিত্বহীন ও সাইনবোর্ড সর্বস্ব প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ঋণ এবং জেনেশুনেও খেলাপি গ্রাহককে ঋণ দিয়েছে ব্যাংকটি। ঋণ বিতরণে নিজস্ব নীতিমালাও মানা হয়নি। একক গ্রাহকের সর্বোচ্চ সীমা অমান্য করে বড় ঋণ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া কেন্দ্রীয় ব্যাংকে ভুল তথ্য প্রদান, অন্য ব্যাংকের খেলাপি ঋণ অধিগ্রহণ, নির্বাহী কমিটি, ব্যবস্থাপনা কমিটি ও শাখা প্রধান এখতিয়ারবহির্ভূত ঋণ, প্রয়োজনীয় ডাউনপেমেন্ট না নিয়ে ঋণ পুনঃতফসিলসহ নানা অনিয়ম হয়েছে। লোকবল নিয়োগে ব্যাপক অনিয়ম করা হয়েছে।

গত ৩০ অক্টোবর অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী সংসদীয় কমিটি ফারমার্স ব্যাংকের অনিয়মের ঘটনা নিয়ে ব্যাংকটির চেয়ারম্যান মহীউদ্দিন খান আলমগীরকে ডাকা হলেও তিনি উপস্থিত হননি। এতে করে চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেছে অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী সংসদীয় কমিটি। ব্যাংকটির ঋণ অনিয়মের ঘটনা শিউরে ওঠার মতো এবং আর্থিক খাতকে ঝুঁকিতে ফেলেছে বলে মন্তব্য করেছেন কমিটির সভাপতি ড. আবদুর রাজ্জাক। সার্বিক অনিয়মের বিষয়ে অধিকতর তদন্ত করে দায়ীদের বিরুদ্ধে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে বাংলাদেশ ব্যাংককে নির্দেশ নিয়েছে সংসদীয় কমিটি।

এর পরেই মহীউদ্দিন খান আলমগীর ব্যাংক থেকে পদত্যাগ করে সর্বশেষে দেশ ছাড়লেন।

সূত্র : বিডি পলিটিকো

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1686 বার
 
 
 
 
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও তারেক রহমান
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 
 

পূর্বের সংবাদ

 
 

অনন্য অনলাইন পত্রিকা

 
 
 

 
Plugin by:aAM
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com