দূর্লভ মায়া হরিন খেয়েছে পিশাচ-খাদক পর্যটক

মার্চ ২৬, ২০১৮ ৭:৩৪ পূর্বাহ্ণ

:: পিশাচ-খাদক পর্যটক
ঘোরাঘুরির জন্য আমাদের মানষিক ও আর্থিক সক্ষমতা বেড়েছে, এটা সত্য। কিন্তু সচেতনা বাড়েনি। বন বা পাহাড়ের পরিবেশ, জীববৈচিত্র্য, উদ্ভিদবৈচিত্র্য রক্ষা করার জ্ঞান থাকলেও আমাদের অনেকেরই মানসিকতা এগুলো ধ্বংস করার। যারা বনে-পাহাড়ে ঘুরতে যান তাদের প্রায় সবাই-ই শিক্ষিত পর্যটক।
আর এই শিক্ষিত পর্যটকদের মধ্যে অনেকেই লোভী পিশাচ-খাদক মানসিকতার। এরা বিত্তশালী এবং সমাজের গুরুত্বপূর্ণ পদমর্যাদার লোক। ভ্রমণে গেলেই বনের হরিণ-পাখি মেরে খাওয়ার লোভে এদের জিহ্বা লক লক করে। এদেরেকে পশু বললে পশুদের অপমান হবে। কারণ পশুরাও তাদের খানাপিনায় নিয়ম মেনে চলে।
এই পোস্টের ছবিগুলো তার সামান্য উদাহরণ। তরুণ ভ্রমণবিদ Apu Nazrul-এর পোস্ট থেকে নিয়েছি। তিনি তার পোস্টের মাধ্যমে এদের মুখোশ খুলতে চেয়েছেন। কিছুদিন আগে বান্দরবানের থানচি’র শেরকর পাড়ায় এখানকার গাইড (!) নুরুল, দুর্লভ মায়া হরিণ জবাই করে একদল পিচাশ-খাদক পর্যটকদেরকে খাইয়েছে। সেই ছবি সে ফেসবুকে আপলোডও করেছে। এই ধরণের পিশাচ-খাদকদের চিনে থাকলে তাদের মেনশন করুন। ঘৃণা করুন। আইনের আওতায় আনুন। প্রতিহত করুন। কেউ এদেরকে ভ্রমণে সঙ্গী করবেন না।
থানচির উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব জাহাঙ্গীর আলম সহ এখানকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী, বনবিভাগের দায়িত্বে যারা আছেন সবার কাছে বিনীত অনুরোধ এই ধরণের অপদার্থ কথিত গাইডসহ লোভী পর্যটকদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিন। যাতে ভবিষ্যতে এমন ঘটনা কেউ ঘটাতে সাহস না পায়।

সূত্র : ফরিদি নোমানের ফেসবুক

 

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1487 বার
 
 
 
 
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও তারেক রহমান
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 
 

পূর্বের সংবাদ

 
 

অনন্য অনলাইন পত্রিকা

 
 
 

 
Plugin by:aAM
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com