টাইগারদের প্রধান কোচ হতে আপত্তি নেই ওয়ালশের

এপ্রিল ৬, ২০১৮ ৫:২৯ অপরাহ্ণ

গত বছরের শেষে চন্দিকা হাথুরুসিংহে পদত্যাগ করার পর এখন পর্যন্ত কোনো প্রধান কোচ নিয়োগ দেওয়া হয়নি বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলে। ঘরের মাঠে তিনটি সিরিজে ‘টেকনিক্যাল ডিরেক্টর’ এর ভূমিকায় কোচের দায়িত্ব পালন করেছেন সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাহমুদ সুজন। তিনটি সিরিজেই বাংলাদেশ ব্যর্থ হয়েছে। এরপর শ্রীলঙ্কায় ত্রিদেশীয় নিদাহাস ট্রফিতে ভারতের কাছে হেরে রানার্সআপ হয় বাংলাদেশ। ওই সিরিজে ভারপ্রাপ্ত কোচ ছিলেন ক্যারিবীয় কিংবদন্তি কোর্টনি ওয়ালশ।

কোনো জাতীয় দলের কোচ হিসেবে নিদাহাস ট্রফিই ছিল ওয়ালশের প্রথম অ্যাসাইনমেন্ট। পঞ্চমবারের মত তিন বা ততোধিক দল নিয়ে আয়োজিত সিরিজে ট্রফি জিততে জিততে রানার্সআপ হয়েছে বাংলাদেশ। ভারতের বিপক্ষে প্রায় জিতে যাওয়া ম্যাচটি শেষ বলে ছক্কা মেরে শেষ করেছেন দিনেশ কার্তিক। এতে ক্রিকেটারদের দোষের চেয়ে ভাগ্যের দোষটাই মনে হয় বেশি।  শ্রীলঙ্কার মাটিতে তাদের দুইবার হারিয়েছে বাংলদেশ। সে যাই হোক, সাদা চোখে দেখতে গেলে, প্রথম অ্যাসাইনমেন্টে মোটামুটি সফল হয়েছেন ওয়ালশ। প্রধান কোচের পদটি কি তাহলে নিতে চান এই কিংবদন্তি?

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের মিডিয়া লাউঞ্জে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে ওয়ালশ বললেন, ‘আমি জানি বিসিবি কোচ খুঁজছে। তবে আমাকে প্রস্তাব দেয়া হলে আমি চালিয়ে যেতে রাজি আছি। যত তাড়াতাড়ি আমরা কোচ পাবো ততই ভালো। এতে করে আমরা বর্তমান মোমেন্টাম ধরে রাখতে পারব এবং আমাদের পরিকল্পনাগুলো সঠিকভাবে সাজাতে পারব। কোচ হই বা না হই, বাংলাদেশ ক্রিকেটের উন্নয়নে ভূমিকা রাখাই আমার মূল কাজ।’

নিদাহাস ট্রফিতে কোচে হিসেবে দায়িত্ব পালন সম্পর্কে সাবেক কিংবদন্তী ফাস্ট বোলার বলেন, ‘আমি সুযোগটি বেশ উপেভোগ করেছি। সবাই পেশাদার ছিল। ক্রিকেটাররাও সব কিছু উপভোগ করেছে এবং আমাকে তারা সর্বোচ্চ সম্মান দেখিয়েছে। হতাশা ছিল শুধু ট্রফিটি আমরা দেশে আনতে পারিনি বলে। ছেলেরা দারুণ খেলেছে। কিন্তু ফাইনালের হারটি কষ্টের ছিল। তবে নিঃসন্দেহে এটা আমাদের জন্য অনেক বড় একটি অর্জন।’

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1089 বার
 
 
 
 
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও তারেক রহমান
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 
 

পূর্বের সংবাদ

 
 

অনন্য অনলাইন পত্রিকা

 
 
 

 
Plugin by:aAM
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com