জয় হোক আমাদের দেশীয় চলচ্চিত্রের এবং দেশীয় স্বার্থের

মে ৬, ২০১৭ ৯:০৬ পূর্বাহ্ণ

শাহরুখ খানের ‘চেন্নাই এক্সপ্রেস’ সিনেমায় ‘Windows Mobile’ -এর অনেকগুলো বৈশিষ্ট্য মূল স্ক্রিপ্টেই ঢুকিয়ে দেয়া হয়েছিল। সালমান খানের ‘সুলতান’ সিনেমায় ‘Videocon DTH’ নিয়ে সারাক্ষণ তাকে দৌড়াদৌড়ি করতে দেখা গেছে। এরকমভাবে বিশ্ব সিনেমায় নামীদামী ব্র‍্যান্ডের সরব উপস্থিতি বেশ লক্ষ্যণীয়।

‘ঢাকা অ্যাটাক’ সিনেমার জন্যও এরকম কয়েকটি স্পন্সর সংগ্রহ করতে গিয়েছিলাম কয়েক জায়গায়:

(১)
-সানোয়ার সাহেব, কিছু মনে করবেন না। আমরা আপনার সিনেমায় স্পন্সর করতে পারছি না।

– এতদূর এগিয়ে এসে এ কথা কেন বলছেন?

-আমরা জঙ্গিবাদ নিয়ে নির্মিত কোন সিনেমার সাথে সম্পৃক্ত হতে পারছি না।

-কিন্তু, ‘ঢাকা অ্যাটাক’ তো জঙ্গিবাদ নিয়ে নয়। আপনাদের তো গল্পের সারসংক্ষেপ জমা দিয়েছি।

– না, মানে সিনেমার নামটাই আক্রমণাত্মক। তাই আমরা এটার সাথে থাকতে পারছি না। আপনার পরবর্তী কোন প্রজেক্টে আমরা ভেবে দেখব।

-কিন্তু, নামটা তো সবাই পছন্দ করেছে। আর ‘লন্ডন অ্যাটাক’ নামেও তো সিনেমা রয়েছে।

-আমাদের আর কিছু বলার নেই। আমরা নিরুপায়।

(২)
– মি: সানোয়ার, ‘ঢাকা অ্যাটাক’-এর সাথে মনে হয় আমাদের থাকা হচ্ছে না। হেড অফিস ডিনাই করে দিয়েছে।

-কেন? জঙ্গিবাদ নিয়ে সিনেমা বানাচ্ছি তাই?

-না, আমরা জানি এটা জঙ্গিবাদ নিয়ে নয়। অন্যরকম একটু সমস্যা আছে।

-‘ঢাকা অ্যাটাক’ নাম নিয়ে সমস্যা?

-জী। হলি আর্টিসান হত্যাকাণ্ড যেহেতু ‘ঢাকা অ্যাটাক’ নামে পরিচিত, তাই আমাদের হেড অফিস এটার সাথে জড়াতে চাচ্ছে না।

-সিনেমার নাম ‘ঢাকা অ্যাটাক’ দেয়া হয়েছে ২০১২ সালে। এটার সাথে ‘গুলশান অ্যাটাক’ কেন মিলাচ্ছেন আপনারা?

-এটা আমাদের হেড অফিস মিলিয়ে ফেলেছে। এখন আমরা নিরূপায়। তবে তাদের এটা বুঝাতে আমাদের আন্তরিকতার কোন ঘাটতি ছিল না।

উপরের দু’টিই বিদেশী কোম্পানী। চুন খেয়ে মুখ পুড়েছে, তাই সিনেমায় জঙ্গিবাদের লেশমাত্র না থাকলেও ‘ঢাকা অ্যাটাক’ নাম শুনেই তারা ভয় পাচ্ছে। কি আর করার! বিদেশী কোম্পানী বলে কথা।

(৩)
কিন্তু , দেশীয় প্রোডাক্ট, দেশীয় কোম্পানী বলে অনেক চিল্লাচিল্লি করে এমন একটা স্বদেশী বড় প্রতিষ্ঠানও তো একই পথে হাটলো। এদেরকে আমরা কি বলব?
……………..

জঙ্গিবাদ একটা সামাজিক, রাজনৈতিক এবং মনস্তাত্ত্বিক ব্যাধি। এটা নিধনে সত্যিকার অর্থেই যে সবার কার্যকরী ভূমিকা নেই তা এখানে স্পষ্ট হয়েছে। জঙ্গিবাদ বিরোধী কার্যক্রমে সামিলের ক্ষেত্রে এরা যে ভীরুতা প্রদর্শন করলেন তাতে তারা কোটি মানুষের ঘৃণার পাত্র হয়ে গেলেন। যদিও সেই প্রতিষ্ঠানগুলোর নাম গোপনই রয়ে যাবে।

কোন ব্রাণ্ডের অমঙ্গলই আমাদের কাম্য নয়। তাই শুধু উষ্মা প্রকাশেই সীমাবদ্ধ রইলাম।

সুখের বিষয় হচ্ছে, বেশ কিছু দেশী-বিদেশী কর্পোরেট হাউজ এগিয়ে এসেছেন। তাদের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র স্পনসরে বিশাল আকারের সিনেমা ‘ঢাকা অ্যাটাক’ নির্মিত হচ্ছে। যদিও মূল প্রযোজনা সংস্থা ‘Splash Multimedia’ এবং ‘ঢাকা পুলিশ পরিবার কল্যাণ সমিতি লি:’। সহযোগী প্রযোজনা সংস্থা হিসেবে রয়েছে ‘থ্রি হুইলারস লি:’।

মোদ্দাকথা, জঙ্গিবাদের সাথে ‘ঢাকা অ্যাটাক’-এর কোন সম্পর্ক নেই। এটি নিছক একটি পুলিশ অ্যাকশন থ্রিলার সিনেমা। অত্যন্ত চমকপ্রদ এবং উপভোগ্যকর একটি মৌলিক গল্পকে নির্ভর করে নির্মিত হচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম পুলিশ অ্যাকশন থ্রিলার সিনেমাটি।

নানা জটিলতায় পিছিয়ে গেছে সিনেমাটির মুক্তির দিনক্ষণ। তবে, স্যুটিং শেষ। ডাবিং শেষ পর্যায়ে । অচিরেই ঘোষণায় আসছে মুক্তির সুনির্দিষ্ট দিন-তারিখ।

জয় হোক আমাদের দেশীয় চলচ্চিত্রের এবং দেশীয় স্বার্থের।

সিনেমাটির পরিচালক: Dipankar Dipon
এবং কনসেপ্ট ও স্টোরী: Sunny Sanwar

#অভিনয়ে- আরেফিন শুভ, মাহিয়া মাহি, এবিএম সুমন, আফজাল হোসেন, শতাব্দী ওয়াদুদ, নওশাবা এবং অতিথি শিল্পী হিসেবে আলগীর, শিপন মিত্র প্রমুখ।

লেখক : সানি সানোয়ার , এডিসি, বাংলাদেশ পুলিশ ।

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 5577 বার
 
 
 
 
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও তারেক রহমান
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 
 

পূর্বের সংবাদ

 
 

অনন্য অনলাইন পত্রিকা

 
 
 

 
Plugin by:aAM
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com