আমেরিকার পরিণাম হয় তা লেখার জন্য ইতিহাসের খালি পাতা গুলি অপেক্ষায় থাকবে

ডিসেম্বর ৭, ২০১৭ ১১:২৫ অপরাহ্ণ

:: ট্রাম্পকে দেখলে মনে হয় , তাকে যদি বলে কেউ আমেরিকায় বোম ফাটাও , খুব মজা হবে । সে তাই করবে ।

তার ভাই মদ খেয়ে খারাপ অবস্হায় পতিত হবার পর সে নাকি মদ কোন দিন ছুয়ে দেখেনি । এক্টু কল্পনা করেন সে যদি মদ্য পান করতো তাহলে কি হতো !

আমি জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানি ঘোষনায় বিশেষজ্ঞরা তেমন কোন অবাক হয়নি । এটার প্রস্তুতি চলছিল সৌদি আরবে তার পা পড়ার আগে । রাজপুত্র সালমানকে হঠাৎ সামনে নিয়ে এসে সে ওখানে এই ঘোষনার ভিত শক্ত করেছে । সৌদি আরবকে মুলত সে এক ঘরে করে ফেলেছে আপাতত । কুয়েতের সংগে কুটনৈতিক দ্বন্দ । ইরানের কোণঠাসা করা সবই ঘোষনার সুচনা । সে জানে সৌদি আরব মুসলিম দেশগুলির অঘোষিত মুখপাত্র । ইসলামের জন্ম ঐ দেশে হওয়ায় পুরো মুসলিম বিশ্বে তার একটা মুল্য আছে । সৌদি আরবের সরাসরি আক্রমণ করা যাবে না । এছাড়াও সৌদি আরব ইয়েমেন ও তার আঁশে পাশের দেশ নিয়ে একটা নাজুক পরিস্হিতিতে আছে । ঐ সব দেশে সৌদি আরবের প্রাধান্য রক্ষার কথা বলে এবং সালমানকে ক্ষমতায় নিয়ে আসার লোভ দেখিয়ে সে বিলিয়ন ডলারের অস্র বিক্রির চুক্তি করে সে ঐ খানেই ইসরাইলের ৩০০ বছরের ইচ্ছার ‘সিল দ্য ডিল ‘ করেছে । রক্ত পাত বিহীন এত বড় বিজয় এবং মধ্যপ্রাচ্যের এত বছরের সমস্যার সমাধান ট্যাম্প সচুতর ভাবে করেছে ।
এই জন্যেই আমেরিকানরা একজন রেপিষট কে ভোট দিয়েছে । তারা জানে এই ঘোষনা দিতে অন্য প্রেসিডেন্টের যেমন লজ্জা করবে তা তার করবে না । পুরো বিশ্ব বাসী এখন দেখছে আমেরিকা কি করে প্রাউড হয় ? মধ্যপ্রা চ্য সমস্যার এই সমাধানের জন্য ট্রাম্প যদি নোবেল ও পায় তাহলেও কেউ আশ্চর্য হবে না ।

এখন আসি আর ক্ষমতাশালী দেশগুলি কি ভাবে নেবে । আমার যেটা মনে হয় তারা এটাকে প্রতিবাদ করবে । কিনতু তা হবে সম্পুর্ণ কুটনৈতিক ভাষায় নম নম্ করে । বৃটিশ সরকার এই বিষয়ে সম্পুর্ণ ওয়াকিবহাল ছিল । সম্প্রতিকালে একজন বৃটিশ এমপির ইসরাইল গমন প্রমান করে এই সাজানো নাটক পাতানো খেলাকে । আমার যতদুর মনে হয় পুরো ইউরোপ এর জন্যে তৈরী ছিল ।খ্রীষটানদের বড় উৎসবের সময় এই ঘোষনা এরই ইংগিত দেয় । ইউরোপের এখানে মানবতার নীতি বলে বক্তব্য দেয়া ছাড়া আর তারা কিছু করবে না । কারন তারা জানে রক্তাক্ত এবং মৃত প্রায় মধ্য প্রাচ্যের সংগঠিত হয়ে পাল্টা জবাব দেয়ার ক্ষমতা নেই । মুসলিম রাসট্রগুলি অনেক বছর শুধু না শতক ধরে সময় বা ক্ষমতাকে ব্যাবহার করতে অক্ষম হয়ে আছে । কতদিন ধরে ইস্যু হবে কিনতু জেরুজালেমকে ইসরাইলের সর্বোপরি রাজধানী করা কেউ আটকাতে পারবে না । তবে একটা কথা বলা যায় এর ফল স্বরুপ প্যালস্টাইনে সংহিংসতা মারাত্মক আকার ধারন করবে ।

এই ঘোষনা নাজুক মুসলিম বিশ্ব কে আরো হতাশ করে ফেলবে । আগে তারা পেটে ভাতে মরেছে এখন তারা হতাশায় মরবে । এখন পর্যন্ত পৃথিবীর অন্যান্য মুসলিম দেশগুলির প্রতিক্রিয়া খুব ধীরে হচছে । এতে বোঝা যায় তারা পরিস্হিতি বুঝেও নিজেদের হিসাব কষায় ব্যস্ত ।

ইতিহাস খুব নির্মোহ । এই জেরুজালেম বার বার মুসলিমদের থেকে ইহুদি খ্রীষটানদের হাতে চলে গেছে ।তারা আবার এটা উদ্ধার করেছে । জেরুজালেম নিয়ে এই খেলায় মানবিকতার চেয়ে ধর্ম্ম বরাবরই বড় ব্যাপার ছিল ।অবাক করা বিষয় সভ্যতার এই লগ্নে আমেরিকার মত দেশে ধর্মটাই বড় করে দেখা হচছে । এটা মানবতার জন্য চরম পরাজয় ও লজ্জার বিষয় হয়ে থাকবে ইতিহাসে । ইতিহাস ঘেটে দেখা যায় যে ক্ষমতার যত উপরে উঠেছে সে তত শক্ত ভাবে মাটিতে আছড়ে পড়েছে । প্রাউড আমেরিকার প্পরিণাম হয় তা লেখার জন্য ইতিহাসের খালি পাতা গুলি অপেক্ষায় থাকবে ।

লেখক : ফারজানা কবির

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1036 বার
 
 
 
 
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও তারেক রহমান
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 
 

পূর্বের সংবাদ

 
 

অনন্য অনলাইন পত্রিকা

 
 
 

 
Plugin by:aAM
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com