আপনার তো অনেক বুদ্ধি, ভয় কেন: হাসিনাকে দুদু

ডিসেম্বর ৮, ২০১৭ ২:৪৫ অপরাহ্ণ

নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভয় পাচ্ছেন বলে দাবি করেছেন বিএনপি নেতা শামসুজ্জামান দুদু। প্রধানমন্ত্রীর অনেক বুদ্ধি, তারপরও তার ভয় কেন-এমন প্রশ্নও করেছেন তিনি।শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক গোলটেবিল আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান। বাংলাদেশের বর্তমান মানবাধিকার বিষয়ে এই আলোচনার আয়োজন করে ‘জাতীয় মানবাধিকার পরিষদ’ নামে একটি সংগঠন।বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নির্বাচনে আসা বা না আসা কোনো দলের নিজস্ব সিদ্ধান্তের বিষয়। গত নির্বাচন বর্জনকারী বিএনপিকে ভোটে আনতে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো উদ্যোগ বা আলোচনার উদ্যোগ নেয়া হবে না।এর প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি নেতা দুদু বলেন, ‘আমাদের কী দায় পড়েছে যে আপনার অধীনে নির্বাচনে যেতে হবে? নির্বাচন হবে আমরাও নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব, কিন্তু সেই নির্বাচনে আপনি সরকার প্রধান থাকতে পারবেন না।’

বিএনপির দাবি আন্দোলনের মাধ্যমেই আদায় করা হবে জানিয়ে দলের ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, ‘যে আন্দোলন হবে সেই আন্দোলন আপনি (প্রধানমন্ত্রী) ভাবতেই পারছেন না। আগামীতে শুধু বিএনপি এবং ২০ দলের না জনগণের আন্দোলন হবে।’সংবাদ সম্মেলনে দেয়া প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করে দুদু বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যে ভাষায় যে ভঙ্গিতে, যে শব্দে কথা বলেছেন তাতে বুঝা যায় এ দেশে ভাল কোন নির্বাচনের সুযোগ নাই। তিনি মাইন্ড সেট আপ করেছেন আমার ধারণা। তিনি আবারও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি মার্কা আরেকটি নির্বাচন করবেন।’

বিএনপির দাবি মেনে নিয়ে নির্দলীয় সরকারের অধীনের ভোটের দাবি মেনে নেয়ার আহ্বানও জানান দুদু। বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আপনার মাথায় তো অনেক বুদ্ধি, আপনি তো বঙ্গবন্ধুর কন্যা। আপনার এত ভয় কীসের? আপনি তো অনেক উন্নয়ন করেছেন। একটি সুষ্ঠু নির্বাচন দিয়ে আপনার জনপ্রিয়তা যাচাই করুন।’সরকার সবকিছুতে সংবিধানের দোহাই দেয় উল্লেখ করে এর সমালোচনাও করেন দুদু। বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী খুব ভালবাসেন সংবিধান। এত ভাল অন্য কিছুতে বাসেন কি না আমার জানা নেই। আওয়ামী লীগ খুব ভালোবাসে সংবিধান। এত ভালোবাসা আওয়ামী লীগের অন্য কিছুতে আছে কি না সেটাও জানা নেই।’

সরকার সমর্থকদের সমালোচনা করে দুদু বলেন, কিছু বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক, অধ্যাপক, ডাক্তার আছেন, তাদেরও অপূর্ব প্রেম হচ্ছে সংবিধানকে ঘিরে। বর্তমানে সকল সমস্যার কেন্দ্রবৃন্দে রয়েছে বর্তমানের এই সংবিধান। এই সংবিধান দিয়ে বাংলাদেশে ভাল কিছু করা সম্ভব না। এটা প্রধান অন্তরায় একটি সুষ্ঠু এবং গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করার।’দুর্নীতির মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারাদণ্ড হলে পরিণতি ভালো হবে না বলেও হুঁশিয়ারি দেন দুদু। বলেন, ‘বেগম জিয়ার জেল হবে কি হবে না এটা নিয়ে একটা আলোচনা আছে। আমরা কেউ কেউ মনে করছি জেল হয়ে গেলে দেশে তুলকালাম কিছু হয়ে যাবে। সরকারও এটা চিন্তা করে।’

তবে এই তুলকালাম এমনিতে হবে না জানিয়ে দলের নেতা-কর্মীদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান দুদু। বলেন, “আমরা রাস্তায় না নামলে তোলপাড় হবে কী করে? ফ্যাসিবাদের কাজ হচ্ছে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে দেয়া। ফ্যাসিবাদের কৃতিত্ব আর যাই বলি তাদের কাজ হল মানুষকে ঘরের বাহিরে না আনা। এটাকে ভাঙতে হবে। এই ভাঙতে পারা মানেই হলো নির্বাচনে জয়লাভ করা।’

‘কত রক্তপাত হবে, কতজন ক্ষতিগ্রস্ত হবে, কতজন বন্দী হবে, কতজন জীবনের জন্য পঙ্গু হয়ে যাবে এটা জানি না এবং কত দিনে শেষ হবে এটাও বলা মুশকিল। কিন্তু এই জন্য যদি আমরা রাস্তায় না নামি শেষটা হবে কী করে?’।আয়োজক সংগঠনের সভাপতি রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনায় বিএনপির স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মো. রহমতউল্লাহ, জিয়া নাগরিক ফোরামের সভাপতি মিয়া মো. আনোয়ার, ছাত্রদলের দপ্তর সম্পাদক আব্দুস ছাত্তার পাটোয়ারীও বক্তব্য দেন।

ঢাকাটাইমস

 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1047 বার
 
 
 
 
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও তারেক রহমান
 
 
 
 

সব মেনু এক সাথে

 
 

পূর্বের সংবাদ

 
 

অনন্য অনলাইন পত্রিকা

 
 
 

 
Plugin by:aAM
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com